জিএসটির ফলে বাড়তে পারে বিস্কুটের দাম, মুশকিলে পড়বেন গরিব মানুষ

0

নয়াদিল্লি: আর এক দিনের অপেক্ষা, তার পরেই পণ্য পরিষেবা কর (জিএসটি) চালু হয়ে যাবে। জিএসটি শুরু হওয়ার পরে, কিছু জিনিসের দাম যেমন কমবে তেমনই বাড়তে পারে অনেক কিছু জিনিসের দাম। এই বেড়ে যাওয়া দামের তালিকায় পড়েছে বিস্কুট এবং মুখরোচক খাবারগুলি।

সব থেকে বেশি চিন্তার ভাঁজ পড়েছে বিস্কুটকে নিয়ে। এতদিন পর্যন্ত কম দাম এবং বেশি দামের বিস্কুটগুলির ওপর ভ্যাট হিসেবে আলাদা কর ধার্য করা হত। কিন্তু জিএসটির পরে চকলেটজাতীয় ছাড়া সবক’টি বিস্কুটের ওপর আঠারো শতাংশ কর ধার্য করা হবে। এখানেই সমস্যায় পড়েছেন উৎপাদক, বিক্রেতা এবং ক্রেতারা। গ্লুকোজ, দুধ, মেরি, ক্রিমক্রেকার জাতীয় বিস্কুটগুলি ‘কম দাম বেশি পুষ্টির’ (এলপিএইচএন) আওতায় পড়ে। এক দিকে পুষ্টি যেমন বেশি, অন্য দিকে দামও কম হওয়ার ফলে গরিব মানুষের অন্যতম প্রধান খাদ্য এই বিস্কুট। কিন্তু জিএসটি চালু হওয়ার পর এই বিস্কুটের দাম বাড়তে বাধ্য এবং সে রকম হলে গরিব মানুষ আতান্তরে পড়বেন।

পার্লের বিভাগীয় প্রধান ময়াঙ্ক শাহ বলেন, “সাধারণত এলপিএইচএন বিস্কুটগুলির দাম কম রাখা হয়, যাতে গরিব মানুষ কিনতে পারেন। এই বিস্কুটগুলিকে আঠারো শতাংশ করের আওতা থেকে বের করে আনার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছি।” এর ফলে অন্য একটি সমস্যা তৈরি হবে বলেও জানান ময়াঙ্কবাবু। তিনি বলেন, “বাজারের গতিই পালটে দেবে জিএসটি। এর ফলে বিস্কুট তৈরি করার জন্য অনেক অসংগঠিত প্রস্তুতকারক উঠে আসবে। সরকার তাঁদের করের আওতায় নিয়েও আসতে পারবে না। এর ফলে নিম্ন মানের বিস্কুট খাবেন ক্রেতারা।”

ক্রেতাদের পাশাপাশি প্রস্তুতকারকদের ওপরেও এর প্রভাব পড়বে বলে জানান ময়াঙ্কবাবু। তিনি বলেন, বর্তমানে বিস্কুট বাজারের মোট ৩৬ শতাংশ বাজার ধরে রেখেছে এই এলপিএইচএন বিস্কুটগুলি। গরিব ক্রেতারা এই বিস্কুট কেনা বন্ধ করে দিলে বিস্কুট উৎপাদনও ক্ষতির মুখে পড়বে।

শুধু বিস্কুটই নয়। জিএসটি চালু হলে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে চিপস্‌, ওয়েফার্স জাতীয় মুখরোচক খাবারগুলির বাজারও।  চিপসে্‌র ক্ষেত্রে এত দিন পর্যন্ত ভ্যাট হিসেবে পাঁচ শতাংশ কর নেওয়া হত। কিন্তু ১ জুলাই থেকে চিপসে্‌র ওপর বারো শতাংশ হারে কর বসবে। এর ফলে মুখরোচক জিনিসগুলির দাম বাড়তে পারে।

তবে প্রস্তুতকারকদের তরফ থেকে জানানো হয়েছে জিনিসগুলির দাম বাড়ানো হবে না। এতদিন পর্যন্ত যতটা লাভ করতেন তাঁরা, জিএসটি চালু হলে এই লাভের অঙ্ক অনেকটাই কমে যাবে। তবে ক্রেতাদের স্বার্থে সেই কম লাভেই তাঁরা সন্তুষ্ট থাকবেন বলে জানিয়েছেন এক প্রস্তুতকারক সংস্থার কর্ণধার।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন