করোনা সংক্রমিত এলাকায় সদ্যোজাত এবং মায়ের যত্ন পরিষেবায় কেন্দ্রের নির্দেশিকা

0
প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: করোনাভাইরাস সংক্রমণের আবহে সদ্যোজাত, শিশু, কিশোর এবং মায়ের যত্ন পরিষেবার ক্ষেত্রে বিস্তারিত নির্দেশিকা জারি করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। করোনা সংক্রমিত এলাকাগুলিতে ‘রিপ্রোডাকটিভ, মেটারন্যাল, নিউবর্ন, চাইল্ড, অ্যাডলসেন্ট হেলথ প্লাস নিউট্রিশন’ (RMNCAH+N) পরিষেবা ক্ষেত্রে ওই নির্দেশিকা মেনে চলতে বলা হয়েছে।

এক নজরে নির্দেশকা-

১. বিভিন্ন স্তরের কনটেনমেন্ট এবং বাফার জোনগুলিতে ক্ষেত্র বিশেষে এই নির্দেশিকা মেনে চলতে হবে।

Loading videos...

২. আরএমএনসিএএইচ+এন পরিষেবার ক্ষেত্রে কোভিড নমুনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক নয়। তবে সন্দেহজনক এবং পজিটিভ রোগীর ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পরিষেবা সরবরাহ করতে হবে।

৩. আরএমএনসিএএইচ+এন পরিষেবার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সমস্ত ওষুধ, সামগ্রী অত্যাবশ্যকীয় সামগ্রীর আওতাভুক্ত করতে হবে।

৪. সংক্রমিত এলাকায় আইএফএ, জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট, ওআরএস, গর্ভনিরোধক ইত্যাদির হোম ডেলিভারি করতে হবে।

৫. সংক্রমিত এলাকায় কোভিড পরিস্থিতি নির্বিশেষ মহিলা, শিশু এবং কিশোরকে সমস্ত রকমের সংকটকালীন পরিষেবা দিতে হবে।

৬. কনটেনমেন্ট এবং বাফার জোনে প্রয়োজনে অন্ত:সত্ত্বাকে টেলফোনের মাধ্যমে পরামর্শ দিতে হবে।

৭. দরকার হলে কনটেনমেন্ট জোনের বাইরে কোনো হাসপাতালে ভরতি করতে হবে।

৮. অন্ত:সত্ত্বাদের পরিবহণে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। অ্যাম্বুলেন্সের বন্দোবস্ত করতে হবে।

৯. দুর্বল সদ্যোজাতদের চিকিৎসায় নিকটবর্তী এসএনসিইউ/এনবিএসইউ পরিষেবা দিতে হবে। সদ্যোজাতদের সমস্ত রকমের চিকিৎসা পরিষেবা নিশ্চিত করতে হবে।

১০. মেডিক্যাল টার্মিনেশন অব প্রেগন্যান্সি অ্যাক্ট (এমটিপিএ) অনুযায়ী, কম্প্রিহেনসিভ অ্যাবরশন কেয়ার (সিএসি) পরিষেবা বজায় রাখতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.