beggar

ওয়েবডেস্ক: শীতের প্রকোপে কাঁপছে এখন উত্তর ভারত। তাপমাত্রার পারদ ক্রমশই নিম্নমুখী হয়ে প্রায় যেন ছুঁয়ে ফেলছে হিমাঙ্ক। এমন সময়ে উত্তরাখণ্ডের পুলিশের কার্যকলাপ চমকে দিল দেশকে।

জানা গিয়েছে, ভিখারিদের ধরে ধরে এখন জেলে পুরছে হরিদ্বার পুলিশ। উঁহু, জেলে কাউকে নিয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গে খারাপ দিকটাই সবার আগে আমাদের মাথায় আসে ঠিকই, কিন্তু পুলিশ এ কাজে কোনো মন্দ উদ্দেশ্য নিয়ে হাত দেয়নি। এমনকী, হরিদ্বার থেকে ভিক্ষাবৃত্তি লুপ্ত করে ফেলাও অন্তত এখনই পুলিশের উদ্দেশ্য নয়। দুর্ভাগা, গরিব মানুষগুলোকে স্রেফ ঠান্ডার হাত থেকে বাঁচানোর জন্যই নেওয়া হয়েছে এমন উদ্যোগ।

হরিদ্বারের পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, যে ভাবে তীব্র শৈত্য প্রবাহ বিপর্যয় ডেকে এনেছে উত্তর ভারতে, তার হাত থেকে ভিখারিদের রক্ষা করাই এই অভিযানের লক্ষ্য। কেন না, এই তুমুল শীতে বাইরে থাকলে অসহায় মানুষগুলো যে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাবেই, সে নিয়ে কেউই সন্দেহ প্রকাশ করবেন না। খেতে না পাওয়া, গরম পোশাক না থাকা এই মানুষগুলো সে ক্ষেত্রে শীতের সঙ্গে লড়বে কী করে?

ঠিক এই চিন্তাটাই নাড়া দিয়ে গিয়েছে হরিদ্বার প্রশাসনকে। জানা গিয়েছে, দিন কয়েক আগেই সেখানে জনা পাঁচেক অজ্ঞাতপরিচয় লাশ মিলেছে। ময়নাতদন্তের পর জানা গিয়েছে যে তাদের সকলেরই মৃত্যু হয়েছে ঠান্ডার সঙ্গে যুঝতে না পেরে।

আরও পড়ুন: ভিখারিকে টাকা দেওয়ার দিন শেষ, বরং থানায় তার খবর দিলেই মিলবে ৫০০ টাকা!

এর পরেই আর সিদ্ধান্ত নিতে দেরি করেনি প্রশাসন। ঠিক করা হয়, ভিখারিদের এই মরশুমের জন্য জেলবন্দি করে রাখা হবে। সে ক্ষেত্রে যেমন গরম পোশাকের সঙ্গে চার দেওয়ালের উষ্ণতা পাবে তারা, তেমনই খেতেও পাবে দুই বেলা পেট ভরে!

যেমন ভাবা, তেমন কাজ! ভিখারিদের জেলবন্দি করার এই নির্দেশ হরিদ্বারের ম্যাজিস্ট্রেট পৌঁছে দেন অঞ্চলের সিনিয়র পুলিশ সুপারিন্ডেন্টেন্টের কাছে। তার পরেই কোমর বেঁধে অভিযানে বেরিয়ে পড়ে পুলিশ বাহিনী। পথ থেকে তুলে তুলে ভিখারিদের নিয়ে আসতে থাকে জেলে।

নিঃসন্দেহে পুলিশের এ এক অভিনব উদ্যোগ! প্রশংসনীয় তো বটেই! এই প্রথম মহিলা ভিখারিদেরও গ্রেফতার করল ভারতীয় পুলিশ!

ও দিকে আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আগামী দিনে তাপমাত্রার পারদ আরও নেমে যাবে। তবে, সেই ভবিষ্যদ্বাণীতে হরিদ্বারের ভিখারিরা যে আর ভয় পাবেন না, সে তো বলাই বাহুল্য!

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন