pollution

ওয়েবডেস্ক: আতসবাজি বিক্রির ওপরে সুপ্রিম কোর্টের নিষেধাজ্ঞার পরেও দিল্লিতে বেড়ে গেল বায়ুদূষণের মাত্রা। বৃহস্পতিবার সকালে দিল্লির কিছু অঞ্চলে চরম সীমায় পৌঁছে যায় বায়ুদূষণের মাত্রা।

সংবাদসংস্থা এএনআই সূত্রে জানা গিয়েছে, এ দিন শহরের আনন্দ বিহার এবং পঞ্জাবি বাগ অঞ্চলে বাতাসের মানের সূচক (এয়ার কোয়ালিটি ইন্ডেক্স) পৌঁছে গিয়েছিল ‘বিপজ্জনক’ মাত্রায়। অন্য দিকে আরকে পুরম অঞ্চলে তা ছিল ‘অস্বাস্থ্যকর’ মাত্রায়।

গত বছর দীপাবলির পরে দিল্লির বায়ুদূষণের মাত্রা চরম আকারে পৌঁছেছিল। পরিস্থিতি এমন জায়গায় গিয়েছিল যে শহরের স্কুলগুলিকে তিন দিনের জন্য বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। দিল্লির পাশাপাশি হরিয়ানা, পঞ্জাব, রাজস্থান এবং উত্তর প্রদেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল জাতীয় পরিবেশ আদালত।

মঙ্গলবারই দিল্লির বায়ুদূষণের মাত্রা ‘রেড জোন’-এ পৌঁছেছিল। তখনই শহর জুড়ে ডিজেলচালিত জেনারেটর ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত সংস্থা ‘এনভায়রনমেন্ট পলিউশন প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল অথোরিটি।’ বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বদরপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র। সেই সঙ্গে অনেক ইটভাটাকেও সাময়িক ভাবে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়।

অন্য দুই প্রধান শহরের চিত্রটা ঠিক কী রকম

কলকাতায় কালীপুজোর আগে থেকেই বায়ুদূষণের মাত্রা বাড়তে শুরু করেছে। অনেকেরই ধারণা, কালীপুজোর দিন প্রবল বৃষ্টির সতর্কতা থাকায় অনেকেই আগেভাগেই বাজি ফাটাতে শুরু করে। তবে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে যে ভাবে বৃষ্টি হচ্ছে তাতে দূষণের মাত্রা খুব বেশি উঠবে না বলেই মনে হয়।

গাঢ় ধোঁয়াশায় বৃহস্পতিবারের সকাল দেখে মুম্বই। বুধবার সকালে মুম্বইয়ে বাতাসের মানের সূচক ছিল ‘সন্তোষজনক’, কিন্তু বিকেলেই তা কমে হয় ‘মডারেট’। মহারাষ্ট্র দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের আশঙ্কা বৃহস্পতিবার বিকেলের পর থেকে ক্রমশ খারাপ হতে শুরু করবে শহরের দূষণের মাত্রা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here