M J Akbar
ছবি: ইয়াহু নিউজ থেকে

ওয়েবডেস্ক: সপ্তাহখানেক সময় জুড়ে কেন্দ্রীয় বিদেশ প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ তুলেছেন ৬ জন মহিলা সাংবাদিক। তাঁদের অভিযোগ, কর্মক্ষেত্রে বা ইন্টারভিউ দেওয়ার সময় তাঁরা ওই বর্যীয়ান সাংবাদিকে হাতে যৌন হেনস্থার শিকার হয়েছেন। সেই তালিকাতে অবশ্য আগেই জুড়ে গিয়েছে বিশিষ্ট সাংবাদিক ডি পুই ক্যাম্পের নাম। একটি সংবাদ মাধ্যমের কাছে পাঠানো একটি ই-মেল ফের চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে সমসাময়িক ্#মিটু-র সৌজন্যে।

দ্য এশিয়ান এজ-এ ইন্টার্ন হিসাবে কাজ করতে আসা ক্যাম্প স্মৃতিচারণা করে জানান,” এক দিন তাঁর টেবিলে মুখোমুখি বসে ছিলাম আমি। তিনি উঠে দাঁড়িয়ে আমার চেয়ারের পাশে ঘুরতে শুরু করলেন। আমিও সম্মান জানাতে উঠে দাঁড়ালাম। তাঁর কাগজে ইন্টার্ন হিসাবে কাজ পাওয়ার জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানাতে হাতটা বাড়িয়ে দিলাম। তিনি এক হ্যাঁচকায় আমার কাঁধটা ধরে জড়িয়ে ধরলেন। আমাকে জাপটে ধরে চুমু খেতে শুরু করলেন। আমার মুখের ভিতর নিজের জিভ পর্যন্ত ঢুকিয়ে দিলেন। আমি হতবাক হয়ে সেখানে দাঁড়িয়ে রইলাম কিছুক্ষণ”।

২০০৭ সালের এই ঘটনার স্মৃতি চারণা করেছিলেন ক্যাম্প। তিনি জানান, সে সময় তাঁর বয়স ছিল ১৮ আর এম জে আকবরের ৫৫ বছরের মতোই।

de Puy Kamp

হাফপোস্ট ইন্ডিয়াকে একটি ই-মেলে ক্যাম্প বলেন, “তিনি আমার সঙ্গে যা করেছিলেন, তা অত্যন্ত ঘৃণ্য। তিনি তো এক দিকে সমস্ত সীমা লঙ্ঘন করেছিলেন অন্য দিকে আমার বাবা-মায়ের সঙ্গেও বিশ্বাসঘাতকতা করেছিলেন। কারণ আকবর আমার বাবার বন্ধু ছিলেন। ১৯৯০ সালে আমার বাবা দিল্লিতে বিদেশি সংবাদমাধ্যমের সাংবাদিক হিসাবে কর্মরত ছিলেন। বাবা চাইছিলেন, আমি বিদেশে থাকলে কষ্টের সম্মুখীন হতে পারি, সে কারণেই তিনি আমাকে ভারতে কাজের জন্য ডেকে নিয়েছিলেন”।

ওই সংবাদ মাধ্যমের তরফে অবশ্য ই-মেলটি বিশদ ভাবে যাচাই করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। বর্তমানে আকবরের বিরুদ্ধে একাধিক মহিলা সাংবাদিক যৌন হেনস্থার অভিযোগ তোলায় পুনরায় ক্যাম্পের অভিযোগ নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত মন্ত্রী এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেননি বলে জানিয়েছে ওই সংবাদ মাধ্যম।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন