বুন্দেলখণ্ড: ইংরেজিতে বহু ব্যবহৃত সেই প্রবাদটাই মনে পড়ছে বারবার- এভ্রিথিং ইজ ফেয়ার ইন লাভ অ্যান্ড ওয়ার। বিয়ের মণ্ডপ থেকে প্রেমিকের মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে হিড়হিড় করে টানতে টানতে গাড়িতে উঠিয়ে অপহরণ তো যেমন তেমন ঘটনা নয়। বিশেষ করে ঘটনাটি যখন এমন এক রাজ্যের, যেখানে আজও মেয়েকে স্বামীর ঘরে পাঠানোর সময় সঙ্গে পাঠানো হয় মোটা টাকার থলি।  আড়ালে অনেক পুলিশ আধিকারিকও এমন নাটকীয় অপহরণের ঘটনাকে ‘ফেয়ার’ বলেই মনে করছেন। তবে কনের পরিবারের পক্ষ থেকে পাত্রের অপহরণের অভিযোগ আনায় গ্রেফতার করা হয়েছে বছর ২৫-এর যুবতী বর্ষা সাহুকে।

আরও পড়ুন;  বিয়ের আসর থেকে বরকে অপহরণ করল ২৫ বছরের যুবতী

গ্রেফতার হওয়ার পরও এতটুকু অনুতপ্ত নন বর্ষা। প্রেমিককে ভালবাসেন, অতএব অন্য কারোর সঙ্গে তাঁর বিয়ে মেনে নেওয়া যায় না, এটাই তাঁর সহজ হিসেব। “অশোক এই বিয়েটা নিয়ে খুশি নয়। অন্য কাউকে বিয়ে করতে ও প্রস্তুত ছিল না। কনের বাড়ির লোকও সেটা বুঝেছিল”, পুলিশকে জানিয়েছে বর্ষা। খোঁজ খবর নিয়ে পুলিশ আপাতত নিশ্চিত, বর্ষা এবং অশোক দীর্ঘ আট বছর ধরে নিজেদের চেনেন, পাত্র নিজে তাঁর বিয়ে নিয়ে সত্যিই খুশি নন।

মঙ্গলবার রাতে, পাত্র অশোক যাদবের বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিদের থেকেই জানা যায় ফিল্মি ধাঁচে পাত্র অপহরণের খবর। রাতারাতি ‘রিভল্ভার রানি’ হিসেবে পরিচিত হয়ে যায় ‘অপহরণকারী’ প্রেমিকা। গ্রেফতারের পর অবশ্য পিস্তল নিয়ে বিয়ের মণ্ডপে যাওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন বর্ষা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন