herbal colour for holi

ওয়েবডেস্ক: ভেষজ রং নিয়ে পরীক্ষা-নিরিক্ষা নিয়ে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে কাজ চলছে কলকাতায়। অতীতের টানে বিশুদ্ধতার স্পর্শে রেঙে উঠতে এই ধরনের ভেষজ রং ভালোই জমিয়ে আসছে দোলযাত্রার অঙ্গনে। এ বছর তারই সঙ্গে নতুন উদ্যোম সংযোজিত হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগে।

যে কোনো বিশ্বস্থ দোকান থেকেই এর আগে পাওয়া যেত যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের উদ্যোগে প্রস্তুত ভেষজ আবির। কলকাতায় প্রথম আধুনিক বিজ্ঞান সম্মত উপায়ে গাছের পাতা ও ফুল শুকনো করে আবির তৈরির পদক্ষেপ নেয় ওই বিশ্ববিদ্যালয়। সম্পূর্ণ ভাবে ধাতব মুক্ত এই আবির এখন বহুল পরিচিত। যার প্যাকেট প্রতি দাম মাত্র ৩০-৩৫ টাকা। এই রং বর্তমানে ত্বক-সচেতন মানুষের কাছে কদর পেয়েছে ভালোই। পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বেসরকারি সংস্থার তৈরি ভেষজ আবির এবং রংও উঠে আসছে খেলুড়েদের হাতে।

holi colour

এ বার সংযোজিত হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগ। নারী ও শিশু এবং সমাজ কল্যাণ দফতরের উদ্যোগে প্রস্তুত এই জৈব রং এখন পাওয়া যাচ্ছে বিশ্ব বাংলার যে কোনো দোকানে। দামও খুব বেশি নয়। ১০০ গ্রামের জন্য ৮৫ টাকা এবং ২০০ গ্রামের জন্য ২২০ টাকার সুগন্ধী ভেষজ আবির পেতে হলে সরকারি ওই দোকানে ঢুঁ মারতেই পারেন।

আরও পড়ুন: হোলি হ্যায়…গানের তালে গা ভেজাতে বেছে নিতে পারেন এই লিঙ্কগুলি

শিলিগুড়ির নন-টিম্বার ফরেস্ট প্রডিউস ডিভিশন এ বছর তৈরি করেছে ১১.৫০ কুইন্টাল ভেষজ রং। তবে সাময়িক রাজনৈতিক পরিস্থিতির কথা ভেবে তারা বিভিন্ন রঙের আবির তৈরি করলেও জোর দিয়েছে সবুজে। জানা গিয়েছে, তারা মাত্র ৫.৩৬ কেজি হলুদ এবং ২.৩০ কেজি লাল আবির তৈরি করেছে। বাকি আবিরের পুরোটাই সবুজ। দোলযাত্রা বা হোলির পাশাপাশি হয়তো পঞ্চায়েত ভোটের কথাও ভাবনা থেকে সরিয়ে রাখেননি কর্তৃপক্ষ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here