earthquake in himalayas
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: হিমালয়ের কোলে যে ভবিষ্যতে ভয়াবহ ভূমিকম্প হতে পারে, সেটা অনেক দিন আগে থেকেই বলে আসছেন বিজ্ঞানীরা। এ বার নতুন ভাবে করা একটি সমীক্ষাও জানিয়ে দিল সেই আশঙ্কার কথা। ওই বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা অচিরেই উত্তরাখণ্ড থেকে পশ্চিম নেপালের মধ্যে সাড়ে আট মাত্রার ভূমিকম্প হতে পারে।

নতুন এই গবেষণাটি করেছেন বেঙ্গালুরুর জওহরলাল নেহরু সেন্টার ফর অ্যাডভান্স্‌ড সাইন্টিফিক রিসার্চের গবেষক বিজ্ঞানী সিপি রাজেন্দ্রন। তাঁর মতে, হিমাচল থেকে পশ্চিম নেপাল পর্যন্ত মাটির তলায় বিপুল পরিমাণে শক্তি জমছে। এই শক্তি বেরোতে চাইলেই ভয়াবহ সেই ভূমিকম্প হবে।

পশ্চিম নেপালের মোহনা খোলা এবং উত্তরাখণ্ডের চোরগালিয়া পর্যন্ত মাটির তলায় বিভিন্ন পরীক্ষানিরীক্ষা করে এই সিদ্ধান্তে এসেছেন রাজেন্দ্রন। তিনি এবং বাকি গবেষকদের মতে, এই অঞ্চলে শেষ বার বড়োসড়ো ভূমিকম্প হয়েছিল ছ’শো-সাতশো বছর আগে।

আরও পড়ুন ভূমিকম্পে তছনছ হতে পারে ভারতের ২৯টি শহর, রয়েছে পশ্চিমবঙ্গেরও কয়েকটি

এই সংক্রান্ত যে রিপোর্ট জমা দেওয়া হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে “১৩১৫ থেকে ১৪৪০-এর মধ্যে একবার এই অঞ্চলে সাড়ে আট মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছিল। এর ফলে ৬০০ কিমি দীর্ঘ একটি চ্যুতি তৈরি হয়।” এই চ্যুতির ফলে প্রচুর পরিমাণে শক্তি জমা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

তাঁদের দাবি, “বহু বছর এই অঞ্চলে কোনো ভয়াবহ ভূমিকম্প হয়নি। সেই কারণেই সে রকম ভূমিকম্পের আশঙ্কা ক্রমশ বাড়ছে।”

রাজেন্দ্রনের কথায়, “এ রকম ভূমিকম্প হলে, এই অঞ্চলের কাছে সেটা হবে প্রলয়ংকরী। কারণ এক দিকে যেমন এই সব অঞ্চলে জনসংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে, অন্য দিকে এই কম্পনের ব্যাপারে আগাম কোনো পরিকল্পনাও প্রশাসনের তরফ থেকে নেই।”

তবে এটাও ঠিক, আগামী কয়েক মাস, বা কয়েক বছরের মধ্যেই যে এই ভূমিকম্প হবে, তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। দশ বছর এমনকি ৫০ বছর পরেও এই কম্পন হতে পারে। এখানেই আরও বেশি সমস্যা। কারণ ভূমিকম্পের পূর্বাভাস দেওয়ার কোনো যন্ত্রই যে এখন আবিষ্কৃত হয়নি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here