kamal hassan

চেন্নাই: ‘বিশ্বরূপম’ সিনেমাটির কথাটি মনে আছে? মুসলিম ভাবাবেগে আঘাত লাগতে পারে, এই অজুহাতে কমল হাসনের এই সিনেমাটির ওপরে নিষেধাজ্ঞার দাবি জানিয়েছিল বেশ কিছু মুসলিম সংগঠন। এ বার হিন্দুত্ববাদীদের উদ্দেশে তোপ দাগলেন কমল হাসন। এবং যথারীতি নিন্দায় সরব হয়েছে বিজেপি-সহ হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলি।

তামিল পত্রিকা ‘আনন্দ বিকতনে’ একটি কলমে তিনি বলেন, তামিলনাড়ুতে হিন্দু চরমপন্থা রয়েছে এবং তার যথেষ্ট প্রভাবও রয়েছে। রাজ্যের উৎসবগুলিকে কাজে লাগিয়ে হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলি পেশিশক্তির প্রদর্শন করছে বলে অভিযোগ করেন হাসন। তিনি বলেন, “হিন্দু জঙ্গিবাদ নেই, এই কথাটা বলা যাবে না।”

আরও পড়ুন: বামেদের সঙ্গে জোট করে তামিলনাড়ুর রাজনীতিতে নামছেন কমল হাসন

তামিলনাড়ুর রাজনীতিতে হিন্দুত্ববাদীদের প্রভাব ক্রমশ বাড়ছে, এই ব্যাপারে হাসনের কাছে জানতে চান কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। ইতিবাচক জবাবে হাসন বলেন, তামিলনাড়ু যে হিন্দু চরম্পন্থার রাস্তা ছেড়ে আবার ন্যায়বিচারের রাস্তায় ফিরে আসবে সে ব্যাপারে তিনি আশাবাদী।

হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলি যে তাদের পথ বদলে ফেলেছে সে কথাও বলেন, রাজনীতিতে পা দিতে চলা এই অভিনেতা। তাঁর কথায়, “আগে হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলি কখনও হিংসার আশ্রয় নিত না। তার বদলে বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনাতেই ভরসা রাখত তারা। কিন্তু এই রাস্তা সফল হচ্ছে না দেখে ক্রমে হিংসার আশ্রয় নিচ্ছে তারা।” এর পর কেরলের উদাহরণ টেনে হাসন বলেন, চরমপন্থাকে কী ভাবে হারিয়ে দেওয়া যায়, সেই ব্যাপারে পথ দেখাচ্ছে কেরল।

এ দিকে হাসনের এই অভিযোগে বেজায় ক্ষুব্ধ তামিলনাড়ুর বিজেপি নেতৃত্ব। অভিনেতার থেকে হিন্দু জঙ্গিবাদের প্রমাণ দাবি করেছে তারা। দলের মুখপাত্র নারায়ণ তিরুপতি বলেন, “কমল হাসনের মতো একজন সুপারস্টারের দায়িত্বশীল মন্তব্য করা উচিত। তাঁর অভিযোগের কি কোনো প্রমাণ রয়েছে।” এই মন্তব্যের জন্য হাসনের ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিরুপতি।

আরও পড়ুন: গেরুয়া তাঁর রঙ নয়, বিজয়নের সঙ্গে সাক্ষাতের পর বললেন কমল হাসন

গেরুয়া যে তাঁর রাজনৈতিক রঙ নয়, সে কথা আগেও বলেছেন হাসন। সরাসরি না বললেও বামেদের সঙ্গে নিয়েই যে রাজনীতিতে তিনি নামতে চলেছেন সে ইঙ্গিতও দিয়েছেন তিনি। ‘হিন্দু চরমপন্থা’ নিয়ে মন্তব্যের পরে তাঁর রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি আরও প্রকট হল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here