দিল্লি-মুম্বইয়ে সংক্রমণ বাড়লেও খালি থাকছে হাসপাতাল-শয্যা, কারণ সম্ভবত ‘ওমিক্রন’

0

মুম্বই ও দিল্লি: ‘ওমিক্রন’-এর হাত ধরেই দেশে করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউয়ের আগমন হতে পারে। এমনই ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। আর গত তিন চার দিনে দেশে প্রধান দুই শহরে যে ভাবে সংক্রমণ বেড়েছে, তাতে সেই ধারণা আরও পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে। তবে স্বস্তির বিষয় হল সংক্রমণ বাড়লেও, হাসপাতালের শয্যা কিন্তু সে ভাবে ভরতি হচ্ছে না।

রাজধানীতে দিল্লিতে গত সপ্তাহ পর্যন্ত সংক্রমণ থাকত ১০০-এর নীচে। গত মঙ্গলবার থেকে সেটা একশো ছাড়িয়ে যায়। এর পর কার্যত লাফিয়ে লাফিয়ে সংক্রমণ বাড়তে বাড়তে গত রবিবার সেটা হয়েছে ২৯০। কিন্তু সংক্রমণ বাড়লেও হাসপাতালের শয্যা সে ভাবে ভরেনি।

গত ১৯ ডিসেম্বর দিল্লিতে সক্রিয় কোভিডরোগীর সংখ্যা ছিল ৫৪০ জন। এর মধ্যে হাসপাতালে ভরতি ছিলেন ২০৮। ২৭ ডিসেম্বরে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা বেড়ে ১ হাজার ১০৩ হয়েছে। হাসপাতালে ভরতি থাকা রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২৩০। অর্থাৎ গত এক সপ্তাহে সক্রিয় রোগী দ্বিগুণেরও বেশি বাড়লেও হাসপাতালের শয্যা ভরতি হয়েছে মাত্র ২২টা।

এমনিতে দিল্লিতে কোভিডের জন্য নির্ধারিত হাসপাতাল শয্যার সংখ্যা ৮ হাজার ৯৬০। এর মধ্যে বর্তমানে ফাঁকা রয়েছে ৮ হাজার ৭৩০টা শয্যা। অন্য দিকে, কোভিড কেয়ার কেন্দ্রে ৩ হাজার ৮৭১টি শয্যা থাকলেও এখনও সব ক’টিই খালি রয়েছে। ফলে আশংকার কোনো কারণ এখনও নেই।

অন্য দিকে মুম্বইয়ে ক্রমশ বাড়ছে কোভিড সংক্রমণ। গত সপ্তাহের শুরুতে শহরে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ছিল দুশোর আশেপাশে। সেটা রবিবার বেড়ে হয়েছে ৮৯৬। কিন্তু হাসপাতাল ভরেনি। আর নতুন করে যাঁরা সংক্রমিত হচ্ছেন, তাঁদের মধ্যে শ্বাসকষ্টের কোনো লক্ষণও দেখা যাচ্ছে না। ফলে কিছুটা হলেও নিশ্চিন্তে রাজ্য সরকার।

এ দিকে, ভারতে ক্রমশ বাড়ছে ‘ওমিক্রন’ আক্রান্তের সংখ্যা। বর্তমানে সেই সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫৭৮। তবে বিশেষজ্ঞদের অনেকের ধারণা ‘ওমিক্রন’-এর গোষ্ঠী সংক্রমণ ভারতে শুরু হয়ে গিয়েছে। সে কারণেই বিভিন্ন জায়গায় সংক্রমণ বাড়ছে।

বিদেশ থেকে যা রিপোর্ট পাওয়া গিয়েছে, তাতে ‘ওমিক্রন’-এর প্রভাবে অত্যন্ত মৃদু উপসর্গই রোগীদের দেখা যাচ্ছে বলে জানানো হয়েছে। আর দিল্লি-মুম্বইয়ে হাসপাতাল শয্যা খালি থাকার ঘটনা দেখে মনে হচ্ছে ‘ওমিক্রন’-ই ছড়াতে শুরু করেছে দেশে।

এটা আদতে সুসংবাদ হতে পারে ভারতের কাছে। ‘ওমিক্রন’-এর মধ্যে দিয়ে করোনার অতিমারি থেকে স্থানীয় রোগে পরিণত হয়ে যাওয়ার সব রকম সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।

আরও পড়তে পারেন

পাঁচ দিন পেরিয়ে গেলেও ধরা পড়ল না বাঘ, আতংকে কুলতলির বাসিন্দারা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন