household-emissions

ওয়েবডেস্ক : আসছে দীপাবলি। বাড়ছে সতর্কতা। সঙ্গে বায়ু আর পরিবেশ দূষণ নিয়ে মাথাব্যথাও। বাজির ধোঁয়া বেশ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয় বাতাসের দূষণের মাত্রা। আর দূষিত পরিবেশ থেকে বেড়ে যায় মানুষ আর গোটা জীব জগতের জীবনের ক্ষেত্রে ভয়াবহতা। তবে উন্নয়নশীল তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলির বায়ুদূষণের আরও একটি বড়ো বিষয় হল গৃহস্থালির জ্বালানি। এই জ্বালানি থেকে সৃষ্ট ধোঁয়া পরিবেশকে ২২% থেকে ৫২% পর্যন্ত বেশি দূষিত করে চলেছে। এমনটা জানা গিয়েছে ‘ইউনাইটেড নেশনস এনভায়রনমেন্ট প্রোগ্রামের’ তৈরি রিপোর্ট থেকে। সঙ্গে এ-ও জানা গিয়েছে এই গৃহস্থালির জ্বালানির একটি বড়ো পরিমাণ হল শস্য খোলা। এর থেকে সৃষ্ট ধোঁয়া দিল্লির বায়ুদূষণের অন্যতম বড়ো কারণ।

‘এয়ার পলিউশন ইন এশিয়া অ্যান্ড দ্য প্যাসিফিক: সায়েন্স বেসড সলিউশন’-এর রিপোর্ট অনুযায়ী এই সমস্যা দূর করতে ২৫টি পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে। তার মধ্যে অবশ্যই যেগুলির কথা বলা যেতে পারে সেগুলি হল রান্নার কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে জৈবগ্যাস, তরল পেট্রোলিয়াম গ্যাস, বৈদ্যুতিক হিটার এবং বিশেষ জ্বালানি। এ ছাড়া ব্যক্তিগত আর বাণিজ্যিক উদ্দেশে বৈদ্যুতিক গাড়ির উপর জোর দেওয়া যেতে পারে। পাশাপাশি আরও বেশ কিছু ব্যবস্থার কথা রিপোর্টে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পুষ্পবতী সিঙ্ঘানিয়া হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্চ ইন্সটিটিউটের ডাক্তার সুমিত গোয়েল জানিয়েছেন, বাড়ির ভেতরের এই দূষণ সাংঘাতিক ভাবে কুপ্রভাব ফেলে ছোটোদের ওপর। তাদের মস্তিষ্কের কার্যকারিতা আর মনে রাখার ক্ষমতার ওপর। কমিয়ে দেয় তাদের মেধা। পূর্ব ভারতের ওপর করা একটি সমীক্ষা থেকে এমনটি জানা গিয়েছে। এই সমীক্ষার বিষয় ছিল ‘গৃহস্থালির দূষণ আর ছোটোদের মেধা’।

গঙ্গার দূষণকারীকে গ্রেফতারের ক্ষমতাও থাকছে রক্ষীবাহিনীর হাতে, সঙ্গে কারাবাস ও জরিমানা

তথ্য বলছে ভারতে ২০ লক্ষ অকাল মৃত্যুর কারণ এই দূষণ। এই পরিমাণ হল বিশ্বের মোট অকাল মৃত্যুর ২৫%। বছরে প্রায় ১ লক্ষ ১০ হাজার শিশু মারা যায় বায়ু দূষণের কারণে।

রিপোর্ট বলছে, দিল্লি শুধু নয়। এই সাংঘাতিক দূষণের কবলে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা আর আশপাশের রাজ্যগুলিও।

‘ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইব্যুনাল’ মঙ্গলবার দিল্লি, হরিয়ানা, পঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে অতিদ্রুত ব্যবস্থা নিতে। শস্য খোলা জ্বালানি হিসাবে যাতে ব্যবহার বন্ধ করা হয়, তার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে। দিল্লির পরিবেশে বায়ুর এই মাত্রাতিরিক্ত দূষণের পেছনে সব থেকে বড়ো ভূমিকা জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার করা এই শস্যখোলা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here