ওয়েবডেস্ক: কুখ্যাত দুষ্কৃতী বিকাশ দুবের (Vikas Dubey) ধরা পড়া নিয়ে জোর জল্পনা চলছে। প্রায় এক সপ্তাহ ধরে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে পালিয়ে বেড়ালেও বৃহস্পতিবার তার নাটকীয় গ্রেফতারিতে আত্মসমর্পণের জোরালো তত্ত্বও উঠে আসছে।

এ দিন সকালে মধ্যপ্রদেশের উজ্জয়িনীর মহাকাল মন্দির থেকে বিকাশকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানায় উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। অনেকেই তার গ্রেফতারির সঙ্গে মিল খুঁজে পাচ্ছেন, বলিউডি ছবির চিত্রনাট্যের সঙ্গে। নিজের ডেরা থেকে হাজার কিমি দূরে মহাকাল মন্দির প্রাঙ্গণে দাঁড়িয়ে তাকে বলতে শোনা যায়, “ম্যায় হুঁ বিকাশ দুবে, কানপুরওয়ালা”। যা সঞ্জয় দত্ত (Sanjay Dutt) অভিনীত “খলনায়ক” ছবির কথা মনে করিয়ে দেয়।

Loading videos...

কানপুরে আট পুলিশকর্মী খুন হওয়ার পর থেকেই সপ্তাহখানেক ধরে পালিয়ে বেড়াচ্ছিল বিকাশ। পুলিশ তার খোঁজে হরিয়ানা, দিল্লি এবং ভারত-নেপাল সীমান্তে জোর তল্লাশি চালায়। তার ঘনিষ্ঠ মহলের কথায়, নয়ের দশকে অপরাধ জগতে আবির্ভাব হয় বিকাশের। এর পর সানি দেওলের (Sunny Deol) ছবি “অর্জুন পণ্ডিত”-এর মতো নিজের ইমেজ গড়ে তুলতে শুরু করে সে। পুলিশ এবং রাজনৈতিক মহলে তার পরিচিতি ছিল ‘পণ্ডিত’ নামেই।

গ্রেফতার হওয়ার জমকালো চিত্রনাট্য

সূত্রের খবর অনুযায়ী, এ দিন সকাল ৮টা নাগাদ মহাকাল মন্দিরে পৌঁছোয় বিকাশ। সেখানে গিয়ে নিরাপত্তারক্ষীদের কাছে নিজের পরিচয় দেয়। এমনকী নিরাপত্তারক্ষীদের উদ্দেশে সে বলে, পুলিশকে খবর দিতে। যাতে পুলিশ এসে তাকে গ্রেফতার করতে পারে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ছবিতে দেখা গিয়েছে, মন্দিরে একটি সোফায় বসে রয়েছে বিকাশ। কিন্তু কী কারণে মন্দিরকেই বেছে নিল সে?

মন্দিরের মতো জায়গা অনেকটাই নিরাপদ। যেখানে সহজে গুলিগোলা চালানোর সম্ভাবনা কম। সাধারণ পুণ্যার্থীদের কথা ভেবে পুলিশও কোনো ভারী পদক্ষেপ নিতে একাধিক বার ভেবে দেখতে পারে।

গ্রেফতার নয়, আত্মসমর্পণ!

বিকাশের ধরা পড়ার পর পুলিশ মহল থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষও একাধিক প্রশ্ন তুলছেন।

উত্তরপ্রদেশে কর্মরত আইপিএস অফিসার অমিতাভ ঠাকুর টুইটারে লিখেছেন, “আমরা বিকাশ দুবেকে গ্রেফতার করতে পারিনি। সে উজ্জয়িনীতে আত্মসমর্পণ করল। এত বড়ো একটা ঘটনার পরেও আমরা তাকে গ্রেফতার করতে পারিনি। সে আশেপাশের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছে। কী ভাবে? এটা তদন্ত করা উচিত”।

কতকটা একই রকম ভাবে এক অবসরপ্রাপ্ত ডিজিপি জানিয়েছেন, “এটা একটা পূর্বপরিকল্পিত আত্মসমর্পণ, সেটা সহজেই বোঝা যাচ্ছে। গত এক সপ্তাহ ধরে বিকাশ তিনটি রাজ্যের পুলিশকে ঘোল খাইয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের আবহে মুখে মাস্ক না পরেই সে মুখে ঢুকে পড়ে। সে ভালো করেই জানত, উত্তরপ্রদেশ পুলিশের খপ্পরে পড়লে তাকে গুলি করে মেরে দেওয়া হবে”।

তিনি আরও বলেন, বিকাশ দুবেকে গ্রেফতার করতে পুলিশকে কোনো বলপ্রয়োগ করতে হয়নি। আসলে কুখ্যাত দুষ্কৃতী কোনো ‘নিরাপদ রাজ্যে’ই আত্মসমর্পণের ছক কষেছিল।

বলে রাখা ভালো, বিকাশের খোঁজে নেমেছিল চার ডজন স্পেশাল টাস্ক ফোর্স, পাশাপাশি রাজ্য পুলিশ তো তার পিছনে ধাওয়া করছিল-ই!

আরও পড়তে পারেন: উজ্জয়িনীর মহাকাল মন্দির থেকে গ্রেফতার বিকাশ দুবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.