women hand
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: যে কোনো হত্যাই নির্মমতার সর্বোচ্চ বহি:প্রকাশ! কিন্তু মধ্যপ্রদেশের বিদিশার রজপুত কলোনির এক ৩৫ বছরের মহিলাকে তাঁর স্বামী যে পদ্ধতিতে খুন করেছেন, তা শুনেই শিউরে উঠছে গোটা সমাজ।

স্থানীয় কোতোওয়ালি থানার ইন্সপেক্টর আর এন শর্মা জানিয়েছেন, দুর্গাবাই নামের ওই মহিলার মৃত্যু হয়েছে দমবন্ধ হয়ে। ভাঙা জিনিস জোড়া লাগানোর কাজে ব্যবহৃত শক্তিশালী আঠা চোখ-মুখ-নাকে লাগিয়ে তাঁকে খুন করেছেন স্বামী হালকেরাম খুশওয়া।

শর্মা জানিয়েছেন, খুনের আগে অপরাধী দুই সন্তানকে বাইরে খেলতে পাঠিয়ে দেয়। আর তার পরেই ওই শক্তিশালী আঠা লাগিয়ে দেয় স্ত্রীর চোখ-মুখ-নাকে। ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যায়, যখন মহিলার ১৫ বছরের ছেলে বাড়ি ফিরে এসে দেখে মা স্থির হয়ে পড়ে রয়েছেন। সে থানা গিয়ে অভিযোগ দায়ের করে। ছেলেটি জানিয়েছে, তার বাবা নেশা করত এবং মায়ের সঙ্গে প্রায়শই ঝগড়া করত। এর আগেও তার মায়ের খাবারে বিষ মিশিয়ে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিল ওই অপরাধী।

পড়তে পারেন: তরুণী নিখোঁজ-কাণ্ডে অভিযুক্ত সাধু প্রতিরাতেই ঘরে আনতেন চড়া দরের ‘কলগার্ল’, অভিযোগ সেবাদারের

পুলিশ অপরাধীকে গ্রেফতার করেছে। পুলিশ তথ্য বলছে, গত ২০১৬ সালে ঠিক একই কায়দায় নির্মম ভাবে খুন হতে হয়েছিল আরও এক জন মহিলাকে। সে ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা হয়েছিল ওই একই আঠা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন