হায়দরাবাদ: তেলঙ্গনার রাজধানী হায়দরাবাদে ভয়ংকর ঘটনার শিকার ১৭ বছরের কিশোরী। একটি পার্টির পরে বাড়ি ফেরার পথে মার্সিডিজ গাড়িতে চারজনের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের অভিযোগ। যে গাড়িতে ধর্ষণ করা হয়েছিল, সেই গাড়িটিকে আটক করেছে হায়দরাবাদ পুলিশ।

ঘটনাটি গত ২৮ মে রাতের। অভিযুক্তরা প্রত্যেকেই নাবালক। দিন তিনেক আগে প্রাথমিক ভাবে নির্যাতিতার পরিবারের তরফে শারীরিক হেনস্তা করার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল। তবে কিশোরীর গলায় আঘাতের চিহ্ন দেখে সন্দেহ বেড়ে যায়।

পরে মেয়েটি তার বাবা-মাকে জানায়, পার্টি শেষে বাড়ি ফেরার সময় কয়েক জন তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে। এর পরে, পুলিশ ধারা ৩৫৪ এবং পকসো আইনের অন্যান্য ধারায় মামলা দায়ের করে। এর পরই তাকে মেডিক্যাল পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। নির্যাতিতার শারীরিক পরীক্ষা করানোর পরে গণধর্ষণের মামলা রুজু করে পুলিশ।

মহিলা পুলিশের সঙ্গে কথা বলার সময় যৌন নির্যাতনের কথা প্রকাশ করে কিশোরী। গত শনিবার বন্ধুর সঙ্গে একটি পার্টিতে গিয়েছিল সে। সেখানেই কয়েকজন ছেলের সঙ্গে আলাপ হয়। বাড়িতে ছেড়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে তাকে গাড়িতে তোলে অভিযুক্তরা। তারপর কিছু দূর গিয়ে গাড়ি থামিয়ে এক এক করে নাবালিকাকে ধর্ষণ করা হয়।

এই ঘটনায় জড়িত থাকার অপরাধে এখনও পর্যন্ত তিন জনকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। জানা গিয়েছে, অভিযুক্তরা প্রত্যেকেই একাদশ অথবা দ্বাদশ শ্রেণির পড়ুয়া। পুলিশ সূত্রে খবর, তারা “রাজনৈতিক ভাবে প্রভাবশালী” পরিবারের সদস্য। ধারণা করা হচ্ছে, এক বিধায়ক-পুত্রের নামও রয়েছে অভিযুক্তদের তালিকায়। তবে সে সরাসরি ধর্ষণের ঘটনায় যুক্ত কি না, তা নিশ্চিত নয়। পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখতে তদন্ত চলছে।

আরও পড়তে পারেন:

১০ জুন প্রকাশিত হবে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল

চার হাজারে উঠল দৈনিক সংক্রমণ, মৃত্যু নগণ্য

কাশ্মীরে এ বার বিহারি শ্রমিককে খুন করল জঙ্গিরা

‘সরকারে থাকলেও হাত বাঁধা ছিল’, সেনাকে আক্রমণে ইমরান খান

এই প্রথম, কাবুলে তালিবান নেতৃত্বের সঙ্গে দেখা করল বিদেশমন্ত্রকের প্রতিনিধি দল

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন