জয়পুর: কংগ্রেস সভাপতি নির্বাচনের কাউন্টডাউন শুরু। রাহুল গান্ধী ফের এক বার দলের সভাপতি হচ্ছেন কি না, অথবা তিনি হতে চাইছেন কি না,তা নিয়ে টানটান উত্তেজনা দলের অন্দরে। এরই মধ্যে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌত সোমবার বলেন, দল “সর্বসম্মত ভাবে” ওই পদের জন্য রাহুলের পক্ষে। তবে তিনি একান্তই না হতে চাইলে, অন্য কেউ ওই দায়িত্ব পালন করবেন।

দলীয় নির্বাচন কর্তৃপক্ষ বলেছে তারা ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নতুন সভাপতি নির্বাচন সম্পূর্ণ করার লক্ষ্য স্থির করেছে। গহলৌত বলেন, সারা দেশের কংগ্রেস কর্মীদের অনুভূতি বিবেচনা করে রাহুল গান্ধীর ভূমিকা গ্রহণ করা উচিত। একই সঙ্গে তিনি বলেন, “রাহুল যদি দলের সভাপতি না হন, তা হবে দেশের কংগ্রেসকর্মীদের জন্য হতাশার। অনেকে কষ্ট পাবেন, কেউ কেউ হয়তো বসে যেতে পারেন। দেশের সাধারণ কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকদের অনুভূতি বুঝে এই পদটি নিজের থেকে তাঁর (রাহুল) গ্রহণ করা উচিত”।

রাহুলকে নতুন সভাপতি করার পক্ষে মত রয়েছে রয়েছে দলের সকলেরই।মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “সর্বসম্মত মতামত তাঁর সঙ্গেই রয়েছে। তাই, আমি মনে করি তাঁর এটা মেনে নেওয়া উচিত। গান্ধী বা অ-গান্ধী পরিবারের কথা নয়। এটা সংগঠনের কাজ , তা ছাড়া কেউ তো প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন না।”

রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “গত ৩২ বছরে গান্ধী পরিবারের কেউ প্রধানমন্ত্রী, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বা মুখ্যমন্ত্রী হননি। তা হলে মোদীজি কেন এই পরিবারকে ভয় পান। কেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে বলতে হবে যে ৭৫ বছরে কিছুই হয়নি? কেন সবাই কংগ্রেসকে আক্রমণ করছে? কারণ কংগ্রেস পার্টি এবং দেশের ডিএনএ স্বাধীনতার আগে এবং স্বাধীনতার পরে একই। কংগ্রেস এমন একটি দল যা সমস্ত ধর্ম এবং শ্রেণিকে এক সঙ্গে নিয়ে চলতে পারে”।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন