নয়াদিল্লি: বিমান দুর্ঘটনা কী কী কারণে হতে পারে? অনেকেই বলবেন বিমানে প্রযুক্তিগত ত্রুটির জন্য হতে পারে, কেউ কেউ বলবেন এয়ার ট্র্যাফিক কন্ট্রোলের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। কিন্তু কসাইখানার জন্যও যে বিমান দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, এই ব্যাপারটা কি কেউ জানেন?

সম্ভবত না, শুধু একজন ছাড়া। তিনি দিল্লি পুরসভার এক ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। তিনি মনে করেন, অবৈধ কসাইখানার জন্য আকাশ থেকে ভেঙে পড়তে পারে বিমান। তাই এই অবৈধ কসাইখানা বন্ধ করার জন্য দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বাইজালের কাছে চিঠিও পাঠিয়েছেন।

তবে বিমান দুর্ঘটনা এবং অবৈধ কসাইখানার মধ্যে একটা সম্পর্কও খুঁজে পেয়েছেন তিনি। চিঠিতে কাউন্সিলর ভগত সিংহ টোকাস লিখেছেন, “আরকে পুরমের ইন্দিরা মার্কেটে অনেক অবৈধ কসাইখানা এবং ধাবা রয়েছে। এই সব কসাইখানার বর্জ্য পদার্থ রাস্তায় ফেলা হচ্ছে। এর ফলে এই সব অঞ্চলে অনেক বেশি পাখি উড়তে শুরু করেছে। পাখিদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার ফলে বিমান দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।”

তিনি আরও লেখেন, “বিমানবন্দরের কাছেই রয়েছে রঙপুরী পাহাড়ি এলাকা। যেখানে প্রতি দিন অনেক পশু মারা হচ্ছে এবং ফেলে রাখা হচ্ছে। এর ফলে বিমানবন্দরে নামা বা ওঠার সময়ে অসুবিধায় পড়তে পারে বিমান।” এই সব অঞ্চল উড়ানের পথে পড়ে বলে জানিয়েছেন তিনি। যে হেতু যে অঞ্চলগুলির কথা তিনি বলেছেন সেগুলি দিল্লি ডেভেলপমেন্ট অথোরিটির (ডিডিএ) আওতায় পড়ে, তাই তিনি ডিডিএ-এর চেয়ারম্যান অর্থাৎ বাইজালকে চিঠি পাঠিয়েছেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন