Vinod Verma arrested

ওয়েবডেস্ক : উত্তরপ্রদেশের গাজিয়াবাদ থেকে বিবিসির প্রাক্তন সাংবাদিক বিনোদ ভার্মাকে গ্রেফতার করল ছত্তীসগঢ় পুলিশ। শুক্রবার ভোর সাড়ে তিনটে নাগাদ তাঁর ইন্দিরাপুরমের বাড়ি থেকে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। প্রথমে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্থানীয় থানায় নিয়ে আসা হয়, পরে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে রায়পুরের পান্ড্রি থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে এক সিনিয়ার পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন।

হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, গ্রেফতারের পর ওই সাংবাদিক সংবাদসংস্থা এএনআইকে বলেছেন, তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। তিনি বলেন, “ছত্তীসগঢ় সরকার আমার কাজে খুশি নয়। তাই আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে।”

ধৃত সাংবাদিক বিনোদ ভার্মা বর্তমানে অমর উজালার ডিজিটাল এডিটর হিসাবে কাজ কর্মরত। সম্প্রতি ছত্তীসগঢ় থেকে রিপোর্টিং করার ক্ষেত্রে যে যে সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে তা এডিটরস গিল্ড অব ইন্ডিয়ার প্রতিনিধি হিসাবে খতিয়ে দেখছিলেন বিনোদ। তাঁকে এ দিন ইন্দিরাপুরম থানা থেকে গাজিয়াবাদ জেলা আদালতে হাজির করানো হয়।

বিবিসি জানিয়েছে, মাওবাদী-অধ্যুষিত ছত্তীসগঢ়ের উপর একাধিক প্রতিবেদন লিখেছিলেন বিনোদ ভার্মা।

আরও পড়ুন : ছত্তিশগড় পুলিশের হাতে ধর্ষণ ও যৌন নিগ্রহের শিকার  ১৬ মহিলা: জাতীয় মানবাধিকার কমিশন

প্রকাশ বাজাজ নামে এক ব্যক্তির করা এফআইআর-এর ভিত্তিতে শুক্রবার ওই প্রবীণ সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়। প্রকাশের অভিযোগ, তাঁর বস রয়েছেন এমন একটি ‘কুরুচিকর’ ভিডিও নিয়ে ওই সাংবাদিক তাঁকে ব্ল্যাকমেল করছিলেন।

এএনআইকে বিনোদ ভার্মা বলেন, “ছত্তীসগঢ়ের এক মন্ত্রীর যৌন ক্রিয়াকয়াপ সংক্রান্ত একটি সিডি আমার কাছে আছে। তিনি রাজেশ মুনাত। সেই কারণেই ছত্তীসগঢ় সরকার আমার ওপর খুশি নয়।”

প্রকাশবাবুর অভিযোগ, তিনি অবিরাম ফোন পাচ্ছেন। ওই ফোনে ভার্মা তাঁকে ব্ল্যাকমেল করছেন। তাঁর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আপত্তিকর ভিডিও ফাঁস করে দেবেন বলে ভয় দেখাছেন। রায়পুর পুলিশ আরও জানিয়েছে, প্রকাশ বাজাজ বলেছেন, ‘কলার’ তাঁর কাছে টাকা চেয়েছেন। তারই ভিত্তিতে পান্ড্রি থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

খবরে জানা গিয়েছে, প্রকাশ বাজাজ বিজেপির ছত্তীসগঢ় রাজ্য কমিটির সদস্য।

সাংবাদিক গ্রেফতারের ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন ছত্তীসগঢ় প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি ভূপেশ বাঘেল। বিজেপিশাসিত রাজ্য গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ জানিয়েছেন তিনি। বাঘেল বলেছেন, “মন্ত্রীর যৌন কেলেঙ্কারি সংক্রান্ত সিডিটি গত সপ্তাহেই প্রকাশ হয়ে গিয়েছে। আমার কাছেও ওই সিডি আছে। কিন্তু আমরা ওই সিডির ফরেনসিক পরীক্ষা করছি, তাই প্রকাশ করিনি। ওই একই সিডি নিজের কাছে রাখার অপরাধে ওই সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। একটা সিডি নিজের কাছে রাখা নিশ্চয়ই কোনো অপরাধ নয়। ভার্মা তো সিডিটা প্রচার করেননি। তাঁর গ্রেফতারেই প্রমাণ হচ্ছে বিজেপি সরকার ইস্যুটা ধামাচাপা চেওয়ার চেষ্টা করছে।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here