শৈত্যপ্রবাহে সংকেত! দিল্লি-সহ পাঁচ রাজ্যে লাল সতর্কতা

0

নয়াদিল্লি: তীব্র শীতল হাওয়া উত্তর ভারতের তাপমাত্রার ক্রমশ অবনমন ঘটিয়ে চলেছে। দিল্লি ও প্রতিবেশী রাজ্যের বেশিরভাগ জায়গায় ন্যূনতম তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে রেকর্ড করা হয়েছে। যার জেরে ঘন কুয়াশা দৃশ্যমানতা হ্রাস করায় বিমান, রেল ও সড়ক যান চলাচলে ব্যাহত হচ্ছে। তবে এই শৈত্যপ্রবাহ নতুন বছর আসার আগেই স্থিতি লাভ করবে বলে আশা করছে না আবহাওয়া দফতর।

কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর রবিবার পঞ্জাব, হরিয়ানা, দিল্লি, রাজস্থান, উত্তরপ্রদেশ এবং বিহারের জন্য একটি লাল সতর্কতা এবং মধ্যপ্রদেশের জন্য রবিবার হলুদ সতর্কতা জারি করে। চরম আবহাওয়ার পূর্বাভাসের জন্য লাল সতর্কতা দেওয়া হয়।

এ দিন দিল্লি বিমানবন্দর থেকে চারটি বিমানকে অন্য গন্তব্যে ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হন কর্তৃপক্ষ। বিমানবন্দরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, পাইলটরা ‘ক্যাট-৩’ অবস্থানের অধীনে বিমান চালাচ্ছিলেন, যার অর্থ রানওয়ে ভিজ্যুয়ালিটি রেঞ্জ (আরভিআর) ছিল ৫০-১৭৫ মিটারের মধ্যে। রেলওয়ের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, দুর্বল দৃশ্যমানতার কারণে হাওড়া-নয়াদিল্লি পূর্বা এক্সপ্রেস-সহ ২৪টি ট্রেন ২-৫ ঘণ্টা দেরিতে চলছে।

হরিয়ানার রেওয়াড়ি জেলায় ঘন কুয়াশার কারণে দিল্লি-জয়পুর মহাসড়কে সব মিলিয়ে ১৫টি গাড়ি দুর্ঘটনায় দু’জন মারা গিয়েছেন এবং ১২ জন আহত হয়েছেন।

হরিয়ানা ও পঞ্জাবের অনেক জায়গায় ন্যূনতম তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ৫-৭ ডিগ্রি কম রেকর্ড করা হয়। দুই রাজ্যের মধ্যে শীতলতম স্থান হিসাবে হিসারের তাপমাত্রা ছিল ০.২ ডিগ্রি। পারদ দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে যাওয়ার সঙ্গে উত্তরপ্রদেশের বেশ কয়েকটি জায়গাও কাঁপছে। মুজফফরনগর ছিল রাজ্যের সবচেয়ে শীতলতম স্থান, যেখানে পারদ নেমেছে ১.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসে, তারপরে আলিগড়, সেখানকার তাপমাত্রা ছিল ১.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

------------------------------------------------
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.