ওয়েবডেস্ক: সরকারি ভাবে ভারতের বর্ষার মরশুম শেষ হয়েছে রবিবার। কেমন গেল এ বারের বর্ষা, সেই নিয়েই হিসেবনিকেশের পালা শুরু। এই তথ্য বিশ্লেষণ করতে গিয়েই দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের (আইএমডি) পূর্বাভাসকে দশ গোল দিয়ে দিয়েছে ভারতের বৃহত্তম বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা স্কাইমেট। সঠিক পূর্বাভাস দিতে কে বেশি সক্ষম, সে ব্যাপারে দু’তরফে তরজাও শুরু হয়ে গিয়েছে।

পুরো মরশুমে যা বৃষ্টি হওয়ার কথা তার ৯৫ শতাংশ বৃষ্টি দিয়ে এ বার যাত্রা শেষ করেছে দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু। আবহাওয়ার পরিভাষায় ভারতে এ বার বর্ষার ঘাটতি। কিন্তু মরশুম শুরুর আগের আদৌ এ রকম পূর্বাভাস দেয়নি আইএমডি। বরং তারা বলেছিল এ বার ৯৮ শতাংশ বৃষ্টি হবে দেশে, আবহাওয়ার পরিভাষায় যা ‘স্বাভাবিক’। শুধু তা-ই নয়, আগস্ট এবং সেপ্টেম্বরের বৃষ্টির ব্যাপারেও পরবর্তীকালে একটি পূর্বাভাস করেছিল আবহাওয়া দফতর। সেখানে বলা হয়েছিল সারা দেশে এই দু’মাসে বৃষ্টি হবে স্বাভাবিকের ৯৯ শতাংশ। যদিও ছবিটা সম্পূর্ণ ভিন্ন।

মহা আড়ম্বরে এ বার যাত্রা শুরু করেছিল বর্ষা। জুন এবং জুলাইয়ে দেশের বেশির ভাগ অঞ্চলেই বর্ষা ছিল স্বাভাবিক বা স্বাভাবিকের থেকে বেশি। কিন্তু আগস্ট পড়তেই বদলে গেল বর্ষার চেহারা। আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরের প্রথম পনেরো দিন সে ভাবে উল্লেখযোগ্য বৃষ্টি পায়নি, দেশের অধিকাংশ জায়গা। ফলে বর্ষণের ঘাটতি দেখা দিতে শুরু করে দেশের বিভিন্ন জায়গায়। আবহাওয়া দফতরের হিসেব বলছে আগস্টে ১৩ এবং সেপ্টেম্বরে ১২ শতাংশ ঘাটতি নিয়ে শেষ করেছে বর্ষা।

এ দিকে স্কাইমেটের পূর্বাভাস মিলে যাওয়াকে ভালো ভাবে মেনে নিতে পারেনি আইএমডি। আবহাওয়া দফতরের ডিরেক্টর কেজে রমেশের মতে, আগস্টে প্যাসিফিকে পরের পর টাইফুন তৈরি হওয়ার ফলে ভারতের ওপরে দুর্বল হয়ে পড়ে মৌসুমী বায়ু। এই ব্যাপারটা আগে থেকে পূর্বাভাস দেওয়া যায় না বলেও জানান তিনি। তবে তাঁর দাবি বৃষ্টি কম হলেও, দেশের জলাধারগুলিতে পর্যাপ্ত পরিমাণে জল রয়েছে।

যদিও আইএমডির দাবিকে খণ্ডন করেছে স্কাইমেট। এই আবহাওয়া সংস্থার সিইও যতিন সিংহ বলেন, “যে বছরে এল নিনো দেখা দেয়, সে বছরেই বর্ষায় বেশি দিনের ‘ব্রেক’ চলে আসে। আমরা শুরু থেকেই বলছি এ বছর এল নিনো দেখা দেবে।” যদিও এল নিনোর ব্যাপারটা মানতে চাইছে না আইএমডি।

উল্লেখ্য, গত মার্চে যে পূর্বাভাস স্কাইমেট প্রকাশ করেছিল, সেখানে বলা হয়েছিল এ বছর স্বাভাবিকের ৯৫ শতাংশ বৃষ্টি পাবে দেশ, আদতে সেটাই হল। নিজেদের ওয়েবসাইটে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে স্কাইমেট বলেছে, “আমরা এক বারই পূর্বাভাস প্রকাশ করেছিলাম। অন্য দিকে আইএমডির তরফ থেকে দু’টো পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল। সেখানে বলা হয় এ বার ৯৮ শতাংশ বৃষ্টি হবে সারা দেশে।”

এ দিকে দেশের অনেকাংশেই বর্ষার চিত্র খুবই করুণ। সারা দেশের ৬৬০টি জেলার মধ্যে ৩৪ শতাংশ জেলাতেই বৃষ্টি ঘাটতি। এর মধ্যে সব থেকে খারাপ অবস্থা পঞ্জাব, হরিয়ানা, দিল্লি, এবং বিদর্ভে। পাশাপাশি মধ্যপ্রদেশের ৩৩টি, উত্তরপ্রদেশের ৪২টি এবং ওড়িশা, তেলঙ্গানা, রাজস্থান এবং ছত্তীসগঢ়ের কিছু জেলাকে খরাকবলিত ঘোষণা করা হবে কি না সে ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। তবে আইএমডির মতে, আগামী সপ্তাহে উত্তর এবং মধ্য ভারতের কিছু অংশে ভালো বৃষ্টির একটা সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে, সুতরাং পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হতেও পারে।

এমনিতে স্কাইমেটের তথ্যকে বিশেষ স্বীকৃতি দিতে চায় না আইএমডি। কিন্তু এ বারের বৃষ্টির পরিমাণ জানান দিচ্ছে, পূর্বাভাস দেওয়ার ব্যাপারে আইএমডিকে অনেকটাই পেছনে ফেলে দিয়েছে স্কাইমেট।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here