প্রতীকী ছবি

কলকাতা: ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ চলছে। কিন্তু এখনও সে ভাবে শীতের দেখা নেই দক্ষিণবঙ্গে। মঙ্গলবার কলকাতার তাপমাত্রা ১৬ ডিগ্রিতে নামলেও, অন্য বার এই সময়ে আরও একটু কমে যায় তাপমাত্রা। তাপমাত্রার এই আচরণ দেখেই অনেকের সন্দেহ শুরু হয়েছে, এ বার ‘গরম’ শীত পড়তে চলেছে কি না। সে রকম একটা জল্পনা কিন্তু আবহাওয়া দফতর উসকে দিয়েছে।

গড় তাপমাত্রা বেশি থাকবে

ডিসেম্বর থেকে সামনের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কেমন থাকবে তাপমাত্রা, সেই নিয়ে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে আবহাওয়া দফতর। সেখানে তারা সাফ জানাচ্ছে, পার্বত্য রাজ্যগুলি ছাড়া, এ বার দেশের অধিকাংশ অঞ্চলেই গড় তাপমাত্রা থাকবে স্বাভাবিকের থেকে ০.৫ ডিগ্রি বা তারও বেশি।

দক্ষিণবঙ্গের জন্য আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস, এই তিন মাসের গড় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ০.৭২ বেশি। তবে তার মানেই এই নয়, যে গোটা শীতে এ বার ঠান্ডার দেখাই মিলল না। ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে কয়েকটা দিন জাঁকিয়ে ঠান্ডা পড়তেই পারে, সেটা এই পূর্বাভাস থেকে বোঝা যাবে না।

অন্য দিকে কাশ্মীর, উত্তরাখণ্ড, হিমাচল, উত্তরবঙ্গের তাপমাত্রাও স্বাভাবিকের থেকে বেশি থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। যদিও স্বাভাবিকের থেকে ০.৫ ডিগ্রির বেশি হবে না এই সব অঞ্চলের গড় পারদ।

‘গরম’ শীতের সম্ভাবনা কম

আবহাওয়া দফতর এ-ও জানিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খণ্ড, বিহার এবং সমগ্র উত্তর ভারতের ‘গরম’ শীত পড়বে, এর সম্ভাবনা ৩৯ শতাংশ। অর্থাৎ স্বাভাবিক শীতেরই সম্ভাবনা রয়েছে ৬১ শতাংশ। আবহাওয়া দফতরের ডিরেক্টর জেনারেল কেজি রমেশ আশ্বস্ত করে বলেছেন, এই পূর্বাভাসে বেশি চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, “গড় তাপমাত্রা যে হেতু স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রির বেশি বাড়বে না, তাই রবি শস্য নিয়েও চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই।”

আরও পড়ুন দক্ষিণবঙ্গে আরও নামল পারদ, কলকাতা আরও শীতল, দার্জিলিং-এ ৪.৬ ডিগ্রি

তৈরি হবে এল-নিনো

প্রশান্ত মহাসাগরে এল-নিনো পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে বলে জানান রমেশ। ইতিমধ্যে সমুদ্রের তাপমাত্রা বাড়ছে। তবে সামনের বছর ফেব্রুয়ারির পরেই এই ব্যাপারটা ভালো করে বোঝা যাবে বলে তিনি জানিয়েছেন। এল-নিনোর জন্ম হলে, ভারতে সামনের বছর বর্ষার দফারফা হয়ে যেতে পারে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here