বাস্তব অবস্থার ভিত্তিতে বর্ষার সময়সূচি নিয়ে বড়ো সিদ্ধান্ত নিতে পারে আবহাওয়া দফতর

0

ওয়েবডেস্ক: গত বছর দশেক ধরেই দেখা যাচ্ছে ক্রমাগত পিছিয়ে যাচ্ছে বর্ষা। নির্ধারিত সময়সূচি মেনে বর্ষার আগমন দেশে হচ্ছে না। আবার বর্ষার বিদায়ও নির্ঘণ্ট মানছে না। সব কিছুই পিছিয়ে যাচ্ছে। অনেক সময়ে দেখা যাচ্ছে দেশে ভালো বৃষ্টি শুরু হতে জুনের শেষ হয়ে যাচ্ছে, আবার বর্ষা বিদায় নিতে নিতে অক্টোবরের মাঝামাঝি করে ফেলছে। এই পরিস্থিতিতে বর্ষার সময়সূচি বদল নিয়ে বড়ো সিদ্ধান্ত নিতে পারে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর।

বর্তমানে যে সময়সূচি কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর মানে, সেটা তৈরি হয়েছিল ১৯৪১ সালে। তখন থেকেই নির্ধারিত যে সময়সূচি ছিল, তাতে বলা হত, বর্ষা কেরলে পা রাখবে ১ জুন এবং রাজস্থান থেকে বিদায় নিতে শুরু করবে ১ সেপ্টেম্বর। ১ জুন থেকে ৩০ সেপ্টেম্বরের সময়সীমাকে বর্ষা বলত কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর।

কিন্তু এখন বর্ষার চরিত্রে অনেক পরিবর্তন হয়ে গিয়েছে। বেশির ভাগ সময়েই নির্ধারিত সময় মেনে বর্ষা দেশে পা রাখছে না। আবার দেখা যাচ্ছে অক্টোবরেও প্রবল বৃষ্টি হচ্ছে দেশের বেশ কিছু অঞ্চলে। এই কারণেই সময়সূচি পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন আস্থা ভোটের আগের দিন কর্নাটক মামলায় রায়দান সুপ্রিম কোর্টের

এই নিয়েই একটি গবেষণা করছেন বেশ কয়েক জন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞকে নিয়ে তৈরি একটি প্যানেল। আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই প্যানেলটি রিপোর্ট দেবে এবং তার পরেই এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। ভূবিজ্ঞান দফতরের সচিব এম রাজীবন বলেন, “ওই রিপোর্টের ভিত্তিতে আমরা বর্ষার সময়সূচি পরিবর্তন নিয়ে বড়ো সিদ্ধান্ত নিতে পারি। হয়তো সামনের বছর থেকেই নতুন সময়সূচি চালু করা হতে পারে।”

নতুন সময়সূচি তৈরি করলে কৃষকদেরও অনেক সুবিধা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ আবহাওয়া দফতরের সঙ্গে জড়িত একটি সূত্রের দাবি, “বর্তমান সময়সূচি মেনে কৃষকরা তাদের কৃষি কাজ করেন। কিন্তু অনেক সময় দেখা যাচ্ছে, অক্টোবরে বর্ষা বিদায় নেওয়ার পর প্রবল বৃষ্টি শুরু হচ্ছে। আবার জুনে বর্ষার ঘোষণার হওয়ার পরেও বৃষ্টির দেখা নেই। সে ক্ষেত্রে মাথায় হাত উঠছে কৃষকদের।” এই পরিস্থিতি যাতে না হয়, সে কারণেই এই পরিবর্তনটি আরও বেশি করে করা উচিত বলে মনে করা হচ্ছে।

বর্ষার সময়সূচি পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা যে রয়েছে সে দাবি বেশ কয়েক বছর আগে থেকেই করছে বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমা। নতুন সময়সূচি নিয়ে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর এখনও কিছু না জানালেও ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা বলেন, কেরলে বর্ষার আগমনের দিন ১ জুন থেকে পিছিয়ে ৮ জুন এবং কলকাতার ক্ষেত্রে তা ৮ জুন থেকে পিছিয়ে ১৫ জুন নির্ধারিত হওয়া উচিত।

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here