জম্মু-কাশ্মীরে চার দিনে নিহত ১৪ জঙ্গি-সহ ১৫, আহত ৩

0
195

শ্রীনগর : জম্মু-কাশ্মীরে ৪ দিনে মারা গেল ১৪ জন জঙ্গি ও ১ জন সেনা। আহত হয়েছেন দু’জন সেনা ও এক জন স্থানীয় মানুষ। তার মধ্যে শনিবার বন্দিপুর জেলায় গুরেজ সেক্টরের কাছে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর ১ জন জঙ্গিকে হত্যা করল সেনাবাহিনী। এ দিন জঙ্গি-অনুপ্রবেশের আরও একটি চেষ্টা আটকাল বাহিনী। এই নিয়ে অনুপ্রবেশের চারটি চেষ্টা ব্যর্থ করল সেনা।

অন্য দিকে শনিবার জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, জম্মু-শ্রীনগর জাতীয় সড়কের ওপর ভোর ৫টার সময় ইন্দো টিবেট বর্ডার পুলিশ (আইটিবিপি)-র দু’টি গাড়ির ওপর হামলা করে জঙ্গিরা। যদিও জঙ্গিরা তাদের লক্ষ্যে সফল হতে পারেনি, কিন্তু সেই সময় জঙ্গিদের ছোড়া গুলিতে আহত হন ১ জন স্থানীয় মানুষ। নাম আরিফ আহমেদ দার। হামলার এলাকা থেকে একে গুলির ২০টি খালি খোল পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন : কাশ্মীরে সেনাবাহিনীর কনভয়ে জঙ্গি হানা, নিহত ২ জওয়ান, আহত ৬

প্রতিরক্ষা বাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল রাজেশ কালিয়া বলেন, অভিযান চলছে। শনিবারে নিহত জঙ্গির অস্ত্রশস্ত্র আটক করা হয়েছে।

সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, এ দিন জেলার প্রধান কার্যালয় বন্দিপুর থেকে ৮৬ কিলোমিটার দূরে গুরেজ উপত্যকায়, ২৫৮০ মিটার ওপরে জঙ্গিরা অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছিল। জায়গাটা উত্তর শ্রীনগর থেকে ১২৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ করতে দেখে তাদের সঙ্গে শুরু হয় গুলির লড়াই।

আরও পড়ুন ঃ নিয়ন্ত্রণরেখায় পাক সেনাবাহিনীর গুলি, মহিলা আহত

ইতিমধ্যে শুক্রবার উরি সেক্টরের গোয়ালটা এলাকায় ৬ জঙ্গি নিহত হয়। বৃহস্পতিবার ওই একই এলাকায় জঙ্গিদের গুলিতে জম্মু ও কাশ্মীর লাইট ইনফ্যান্ট্রি (জাকলি)-র ২ জন সেনা আহত হন। সাত দিনে এই নিয়ে পাকিস্তান থেকে জঙ্গিরা নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর মাছিল, নওগাম, গুরেজ সেক্টর-সহ বিভিন্ন এলাকা দিয়ে একাধিকবার অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছে। তাদের সব ক’টি প্রচেষ্টাই বানচাল করে দিয়েছে ‘সতর্ক’ বাহিনী।

সেনাবাহিনীর দাবি, এই সমস্ত জঙ্গি আনুপ্রবেশের পেছনে পাক সেনাবাহিনীর সক্রিয় মদত রয়েছে।

উধমপুরে নর্দার্ন কমান্ডের সদর দফতর থেকে জানানো হয়েছে, চলতি বছরে এই নিয়ে ২৪টি অনুপ্রবেশ প্রতিরোধ করেছে বাহিনী। সংঘর্ষে মারা গেছে ৪১ জন অনুপ্রবেশকারী।

 

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here