kulbhusan jadhav

ওয়েবডেস্ক: গত ২১ মাসে ২৫ বার পাকিস্তান অগ্রাহ্য করেছে কুলভূষণ যাদবের সঙ্গে মা ও স্ত্রীর সাক্ষাৎমূলক কনসুলার অ্যাক্সেসের বিষয়টি। শেষ পর্যন্ত যদিও ২০ ডিসেম্বর ইসলামাবাদ তাঁদের ভিসার অনুমতি দেয়। সেই অনুমতি সঙ্গে নিয়ে অবশেষে বড়োদিনে যাদবের সঙ্গে দেখা হল তাঁর পরিবারের। কিন্তু ঘটনাটিকে কনসুলার অ্যাক্সেস কোনো দিক থেকেই বলা সম্ভব হচ্ছে না।

kulbhushan jadhav

জানা গিয়েছে, যাদবের মা এবং স্ত্রী ভায়া দুবাই পাকিস্তান পা রাখেন সোমবার সকালে। তাঁদের এই আসা ঘিরে সন্ত্রস্ত হয়ে ছিল ইসলামাবাদ। রাস্তার মোড়ে মোড়ে বিশেষ শুটার-দল, মিলিটারি বাহিনীর উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। সেই কড়া বেষ্টনী পেরিয়ে শেষ পর্যন্ত জেলে হাজির হন তাঁরা। কিন্তু সরাসরি যাদবের সঙ্গে কথা বলার সৌভাগ্য তাঁদের হয়নি। যাদব ছিলেন কাচের ওপারে, তাঁকে ঘিরে ছিল পুলিশ ও মিলিটারি। ইন্টারকমের মাধ্যমে পরিবারের সঙ্গে কথা সারতে হয় তাঁকে। সময়ের মেয়াদ ছিল আধ ঘণ্টা। এই সাক্ষাতের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন পাক দূতাবাসের ডেপুটি হাই কমিশনারও। ফলে স্পষ্ট প্রতীয়মান, এই সাক্ষাৎ আর যা-ই হোক, কনসুলার অ্যাক্সেস নয়।

আরও পড়ুন: সোমবার পাকিস্তান যাচ্ছেন কুলভূষণের মা ও স্ত্রী

এই প্রসঙ্গে সাফ জানিয়েছে পাকিস্তান, কনসুলার অ্যাক্সেসের অনুমতি তারা দেবে না। “কেবল আন্তর্জাতিক আদালতে ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ণ রাখতেই শেষ পর্যন্ত যাদবের সঙ্গে তাঁর পরিবারকে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এই অনুমতি কেবল মানবিকতার স্বার্থে। তবে ভারত আমাদের জায়গায় থাকলে এই বদান্যতা দেখাত না”, অভিযোগের আঙুল তুলেছেন পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী খোওয়াজা মহম্মদ আসিফ।

ভিসায় উল্লিখিত শর্ত অনুসারে সোমবারেই পাকিস্তান থেকে নিজের দেশে রওনা হচ্ছেন যাদবের মা এবং স্ত্রী। পাক বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছে, তারা কুলভূষণকে ভারতীয় দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগের অনুমতি দেবে। তবে বড়োদিনে পরিবারের সঙ্গে যাদবকে অবাধ সাক্ষাতের সুযোগ না দেওয়ায় বিতর্ক বাড়ছে বই কমছে না।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here