a man

দিল্লি: চিকিৎসক তাঁকে ভিটামিন ডি নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তাই তো যে সে জিনিসে ভিটামিন-ডি না খুঁজে এক্কেবারে মূল উৎসেরই শরণাপন্ন হয়েছেন তিনি। এটা তো মোটামুটি সবাই জানে সূর্যই ভিটামিন-ডি-র আসল ভাণ্ডার। আর তার জন্য যেটা করতে হবে তা হল সূর্যস্নান। তিনিও সেটাই করছিলেন। তাতে আর তাঁর দোষ কোথায়? কিন্তু হতভাগা পুলিশগুলো কিনা তুলে নিয়ে গেল!

চিকিৎসকের পরামর্শ মেনেই ৫২ বছরের লতিফ সইদ সকাল সকাল পুনের সিংহগড় ফোর্টে সূর্যস্নান করছিলেন। সময়টা সাড়ে আটটা থেকে সাড়ে ন’টা। কিন্তু তাতে একটু গণ্ডগোল ছিল। তিনি সম্পূর্ণ নগ্ন ভাবে শুয়েছিলেন তাও আবার মত্ত অবস্থায়। আর তাঁর এমন কাণ্ডকারখানা অনেক মানুষকেই অস্বস্তিতে ফেলছিল।

ফোর্টের দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা ২৩ বছরের স্বপ্নিল জামবালে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, তিনি রোজের মতো পরিষ্কার করার কাজ করছিলেন। তখনই দূরদর্শন কেন্দ্রের ঘরের দিকে সইদকে নগ্ন অবস্থায় বসে থাকতে দেখেন। তাঁর পাশে ছিল একটা খালি মদের বোতল। মত্ত সইদ তাঁদের দেখতে পেয়ে পেছন দিকটা পরিষ্কার করে দিতে বলেন। তখনই তাঁকে জামাকাপড় পরে নিতে অনুরোধ করেন স্বপ্নিল আর তাঁর সহকর্মীরা। কিন্তু তা কিছুতেই শুনতে চান না  সইদ। উলটে বলতে থাকেন, এই জায়গাটা তাঁর ব্যক্তিগত সম্পত্তি। আর চিকিৎসকের পরামর্শেই তিনি সূর্যস্নান করছেন ভিটামিন ডি-এর জন্য।

এত বলার পরও যখন কাজ হল না তখনই তাঁরা গোটা ঘটনা ভিডিও করেন আর সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। তার পরই খবর পুলিশের কাছে পৌঁছোয়। পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে।

হাভেলির সিনিয়র ইন্সপেক্টর বিশ্বম্ভর গোদলে বলেন, ভিডিওটা দেখে সকলে ফোন করতে থাকে। তাই পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে ভিডিও যিনি করেছিলেন তাঁকে ডেকে পাঠানো হয়। সইদের বাড়ি ওয়ানওয়ারিতে। ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৯৫এ ও ৫০৯ ধারায় সইদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। সোমবার তাঁকে আদালতে তোলা হবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন