প্রতীকী ছবি।

ওয়েবডেস্ক: গত এক সপ্তাহ ধরে ভারত এবং পাকিস্তানের সীমান্ত পরিস্থিতি বেশ উত্তপ্ত ছিল। পাকিস্তানের লাগাতার গুলিবর্ষণে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি প্রাণ হারিয়েছিলেন কয়েকজন সেনা জওয়ানও। ভারতেরও পালটা প্রত্যাঘাতে নিহত হয়েছে পাকিস্তান রেঞ্জার্সে বেশ কয়েকজন জওয়ান। সীমান্ত বরাবর জারি থাকা এই উত্তেজনা প্রশমনের উদ্যোগ নিল দু’দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর প্রধানেরা।

বিএসএফের জম্মু ফ্রন্টিয়ারের ইন্সপেক্টর জেনারেল রাম আটওয়ার এই বৈঠকের খবর নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, “আরএস পুরা সেক্টরের সুচেতগড় এলাকার অক্ট্রয় পোস্টে বিএসএফ এবং পাকিস্তান রেঞ্জার্সের প্রধানের মধ্যে একটি ফ্ল্যাগ মিটিং হচ্ছে।”

উল্লেখ্য গত ১৭ থেকে ২ জানুয়ারি পর্যন্ত পাকিস্তানের লাগাতার গুলিবর্ষণের ফলে প্রাণ হারিয়েছেন দু’জন বিএসএফ জওয়ান, চারজন সেনা জওয়ান এবং সাতজন সাধারণ নাগরিক। এর পাশাপাশি আহত হয়েছিলেন আরও অন্তত ৬০ জন।

পাকিস্তানের এই গুলিবর্ষণের ফলে সীমান্তের পাঁচ কিলোমিটার ব্যসার্ধে থাকা সমস্ত মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বন্ধ রয়েছে স্কুলও। তবে ২২ জানুয়ারি থেকে আর গুলিবর্ষণ না হওয়ায়, প্রশাসন মনে করছে ২৯ জানুয়ারি থেকে স্কুলগুলি আবার খোলা যেতে পারে।

উল্লেখ্য ২০১৭-টে ৮৮২ বার সংঘর্ষবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান। এর ফলে মৃত্যু হয় বারোজন সাধারণ নাগরিক এবং আঠারোজন সেনা জওয়ানের। ভারতের অভিযোগ, জঙ্গিদের নিরাপদে ভারতে প্রবেশ করানোর জন্যই লাগাতার সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন করে পাকিস্তান। যদিও এই অভিযোগ পাকিস্তান বারবার নস্যাৎ করে এসেছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন