লকেট-রাজ্যবর্ধনরা পুলিশের প্রশংসা করলেও হায়দরাবাদ এনকাউন্টারে ভিন্ন মত বিজেপির

0

ওয়েবডেস্ক: হায়দরাবাদে তরুণী পশুচিকিৎসককে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলার চার অভিযুক্তেরই মৃত্যু হয়েছে এনকাউন্টারে। শুক্রবার সকালের এই ঘটনার পরেই বিভিন্ন মহল থেকে পুলিশের প্রশংসায় জোয়ার বইতে শুরু করে। এক বিজেপি সাংসদ তেলঙ্গানা পুলিশের ভূয়সী প্রশংসা করেন। কিন্তু তেলঙ্গানা রাজ্য বিজেপি বিবৃতি দিয়ে জানায়, একটা দায়িত্বশীল জাতীয় দল হিসাবে এখনই কোনো মন্তব্য করা হবে না দলের তরফে।

তেলঙ্গানা বিজেপির মুখপাত্র কে কৃষ্ণসাগর রাও একটি বিবৃতিতে বলেছেন, “গণধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ড একটি ভয়াবহ অপরাধ। বিজেপি এর নিন্দা করেছে। কিন্তু একই সঙ্গে দায়বদ্ধ বিরোধী দল হিসাবে তেলঙ্গানা রাজ্য সরকারকেও অভিযুক্তদের বিচার প্রক্রিয়ার আওতায় নিয়ে আসার জন্য চাপ প্রয়োগ করেছে”।

বিজেপি জানায়, “তবে, ভারত কোনো কলা গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র নয়। আইনী এবং সাংবিধানিক কাঠামোর দ্বারা আবদ্ধ অপরাধের বিষয়ে রাজনীতি একটি সঠিক নজির নির্ধারণ করতে পারে না। তেলেঙ্গানা রাজ্য সরকার এবং ডিজিপিকে অবিলম্বে একটি যৌথ সংবাদিক বৈঠক ডাকতে হবে”। বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, “দায়িত্বশীল জাতীয় দল হিসাবে বিজেপি সরকার এবং পুলিশের যৌথ বিবৃতি দেওয়ার পরেই প্রতিক্রিয়া জানাবে”।

এ দিন সকালের ঘটনা প্রকাশ্যে আসার সঙ্গে সঙ্গে বিজেপি সাংসদ রাজ্যবর্ধন রাঠোর টুইটারে লিখেছেন, “আমি হায়দরাবাদ পুলিশকে অভিনন্দন জানাই। একই সঙ্গে যে দলীয় নেতৃত্ব পুলিশের এই ধরনের কাজকে অনুমোদন দিয়েছিল তাঁদেরও”।

অন্য এক বিজেপি নেত্রী শাইনা এনসি টুইটারে লিখেছেন, “একই জায়গায় চার অভিযুক্তকে গুলি করে মারা হয়েছে। এটা প্রাকৃতিক বিচার”।

[ আরও পড়ুন: ‘এটাকেই বলে ন্যায়বিচার’, হায়দরাবাদ এনকাউন্টার-এ প্রতিক্রিয়া ]

পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, “যদি এ ধরনের কিছু ঘটে তাহলে অপরাধীদের ১৫ দিনের মধ্যে ফাঁসি দিয়ে অথবা এনকাউন্টারে মেরে ফেলা উচিত। আমি এই এনকাউন্টারের জন্য পুলিশকে ধন্যবাদ জানাই”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.