জইশের ব্যাপারে চিনের প্রতি ধৈর্য দেখানোর পথেই হাঁটছে ভারত

0
masood azhar and china
চিন ও মাসুদ আজহার। ছবি সৌজন্যে দ্য ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস।

ওয়েবডেস্ক: শেষমেশ মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি তালিকাভুক্ত করা হবেই। সেই আশা নিয়েই চিনের প্রতি আপাতত ধৈর্য দেখানোর পন্থাই নিল ভারত। বিভিন্ন সূত্রের খবর, এই মুহূর্তে ভারতের মনোভাব হল, “চিনের যতটা সময় দরকার ভারত দেবে।”

উল্লেখ্য, গত বুধবার, মাসুদ আজহারকে তালিকাভুক্ত করার প্রস্তাবে ভেটো দিয়ে দেয় চিন। এই নিয়ে ২০০৯ সাল থেকে বার বার চার বার ভারতের প্রচেষ্টাকে বানচাল করল তারা। ‘টেকনিক্যাল’ কারণ দেখিয়ে এই মর্মে আনা একটি প্রস্তাব ঝুলিয়ে রাখল চিন। এর পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট হতাশা প্রকাশ করেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ।

পুলওয়ামা হামলা ও তার পরে বালাকোটে ভারতের বিমান হানার পর চিন যে আচরণ করছে তাতে ভারত মাসুদ আজহারের বিষয়টি নিয়ে কিছুটা আশান্বিত ছিল। উল্লেখ্য, বালাকোটে বিমান হানার তেমন ভাবে নিন্দা করেনি চিন। উপরন্তু সেই সময় বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের চিন সফরে চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র যে মন্তব্য করেছিলেন তাতে ভারতের মনে আশা জাগে। বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র বলেছিলেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করাটা গোটা বিশ্বের দায় এবং সেই লড়াইয়ে একে অপরকে সহযোগিতা করা উচিত।

আরও পড়ুন: মাসুদ আজহারকে নিয়ে প্রস্তাব কেন আটকানো হল, আত্মপক্ষ সমর্থন চিনের

তার পর নিউক্লিয়ার সাপ্লায়ার্স গ্রুপে ভারত ও পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্তির প্রসঙ্গ যখন ওঠে, চিন তখন জানিয়ে দেয় ওই দুই দেশকে তারা পরমাণু শক্তিধর বলে মনে করে না। ভারতের ব্যাপারে চিন বরাবরই এই মনোভাব নিয়ে চলেছে। সুতরাং ভারতকে নিয়ে এই মন্তব্যে নতুনত্ব কিছু ছিল না। নতুনত্ব ছিল পাকিস্তান সম্পর্কে মন্তব্যে। পাকিস্তানের প্রতি এই মনোভাব ভারতের মনে আশা জুগিয়েছিল। কিন্তু মাসুদ আজহারের ব্যাপারে চিনের অনড় মনোভাব ভারতের সেই আশায় জল ঢেলে দিল।

নিরাপত্তা পরিষদে যারা এই প্রস্তাব এনেছিল এবং যে সব সদস্য-দেশ এই প্রস্তাবে সায় দিয়েছিল, তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে জঙ্গিদের নেতাদের যাতে আন্তর্জাতিক বিচার প্রক্রিয়ায় আনা যায় তার জন্য সব রকমের চেষ্টা চালানো হবে বলে ভারতের বিদেশ দফতরের তরফে জানানো হয়েছে।

তবে আপাতত চিনের সঙ্গে ধৈর্য ধরারই বার্তা দিয়েছে চিন। বিদেশমন্ত্রকের আশা, একটা সময় ঠিক আসবে যখন মাসুদকে তালিকাভুক্ত করতেই বাধ্য হবে চিন।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন