কাশ্মীরে ভারতের অত্যাচার প্রসঙ্গে বুধবার রাষ্ট্রপুঞ্জে সরব হয়েছিলেন নওয়াজ শরিফ। উরি হামলার প্রসঙ্গ এড়িয়ে, বুরহান ওয়ানিকে ‘স্বাধীনতা সংগ্রামী’ আখ্যা দিয়েছিলেন। কিছুক্ষণ পরেই শরিফের এই বক্তব্যের পাল্টা দিতে গিয়ে পাকিস্তানকে চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ করল ভারত। পাকিস্তানকে ‘সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র’ বলতেও পিছপা হলেন না রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতের দূত এনাম গম্ভীর।

রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ সভার ৭১তম অধিবেশনে শরিফের বক্তব্যের জবাবে গম্ভীর বলেন, “মানবাধিকার লঙ্ঘনের সব থেকে জঘন্য উপায় হল সন্ত্রাসবাদ। এই সন্ত্রাসবাদ যখন কোনও রাষ্ট্রনীতি হয়, তখন সেটা যুদ্ধপরাধের সমান। পাকিস্তানের এই রাষ্ট্রনীতির ফলে আমার দেশ এবং প্রতিবেশী দেশকে ভুগতে হচ্ছে।”

এরপর আরও দ্ব্যর্থহীন ভাষায় গম্ভীর বলেন, “প্রাচীন বিশ্বের শিক্ষাকেন্দ্র তক্ষশীলার ভূমিতে আজ সন্ত্রাসবাদীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিক্ষানবিশরা এসে এখানে প্রশিক্ষণ নেয়।”

বিদেশ থেকে পাওয়া আর্থিক অনুদান যে পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদের পেছনে খরচা করে সেই প্রসঙ্গ টেনে আনেন গম্ভীর। পাশাপাশি পাকিস্তানের সাধারণ মানুষও যে এই সন্ত্রাসবাদের শিকার তাও বলেন তিনি। সব মিলিয়ে পাকিস্তানকে কূটনৈতিক ভাবে বিচ্ছিন্ন করার ব্যাপারটিকে যে ভারত পাখির চোখ করেছে তা আরও একবার বোঝা গেল রাষ্ট্রপুঞ্জে এই বক্তব্যের মাধ্যমে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here