সামরিক আগ্রাসন নয়, কূটনৈতিক ভাবেই বিচ্ছিন্ন করা হবে পাকিস্তানকে। উরিতে জঙ্গি হামলার পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার এই সিদ্ধান্ত নিল ভারত।

উরিতে জঙ্গি হামলার মোকাবিলার পদক্ষেপ ঠিক করতে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে সোমবার একটি উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হয়। প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পরিকর, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল আর সেনা প্রধান দলবীর সিংহ। সূত্রের খবর, এখন থেকে আন্তর্জাতিক সমস্ত মঞ্চে পাকিস্তানের জঙ্গি যোগের তথ্যপ্রমাণ পেশ করার ব্যাপারে নিজের মত দেন প্রধানমন্ত্রী। তথ্য প্রমাণ পেশের পাশাপাশি পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত হয়েছে বৈঠকে। রাষ্ট্রপুঞ্জের আসন্ন সাধারণ সভাতেই এই পদক্ষেপ নিতে চলেছে ভারত।এ দিকে সোমবার আরও এক জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮তে।

এ দিকে জঙ্গি হামলার সাথে তাদের যোগের কথা অস্বীকার করে পাকিস্তান। পাক বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র নাফিজ জাকারিয়া বলেছেন, “কোনও হামলার ঘটনা ঘটলেই ভারতের ইতিহাস রয়েছে পাকিস্তানের দিকে অভিযোগের আঙুল তোলা। অথচ পরে তদন্তে এই অভিযোগ অসত্য প্রমাণিত হয়েছে।”

স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরণ রিজ্জু এই বিবৃতিকে উড়িয়ে দিয়ে জানিয়েছেন, “পাকিস্তান মানল কি মানল না সেটা কোনও বিষয়ই নয়। আমাদের উচিত তাদের কথায় গুরুত্ব না দেওয়া।” তিনি আরও বলেন, “পাকিস্তান অস্বীকার করলেও সত্য বদলাবে না।”

In the wake of the Uri terror attack, PM @narendramodi chairs a high level meeting. pic.twitter.com/pwTcvNowHi

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here