করোনা ঠেকাতে দীপাবলি, রাত ৯টার প্রস্তুতি তুঙ্গে

ওয়েবডেস্ক: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) বিরুদ্ধে ১৩০ কোটি ভারতবাসীর একত্রিত লড়াইকে সংঘবদ্ধ করতে রবিবার রাত ৯টা থেকে ৯.০৯ মিনিট পর্যন্ত ঘরের লাইট নিভিয়ে প্রদীপ, মোমবাতি, টর্চ অথবা মোবাইলের ফ্ল্যাশ লাইট জ্বালানোর পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। তারই প্রস্তুতি চলছে জোরদকমে।

দেশের বিভিন্ন জায়গায় দোকানে থরে থরে সাজানো রয়েছে প্রদীপ। লকডাউনের জেরে অত্যাবশ্যকীয় সামগ্রীর তালিকার বাইরে এই ধরনের প্রদীপ-মোমবাতিও দেদার বিকোচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। অন্য দিকে পাওয়ার গ্রিড সংক্রান্ত সমস্যা এড়াতে বিভিন্ন বিদ্যুৎ বণ্টন সংস্থাগুলিও পরিকল্পনা সাজাচ্ছে।

তবে কেন্দ্রের তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, বাড়ির আলো নেভানো হলেও রাস্তার আলোগুলি সমানভাবেই জ্বলবে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক, কোন কোনো বিদ্যুতিন সরঞ্জাম জ্বেলে রাখতে বলছে কেন্দ্র।

বিদ্যুৎমন্ত্রক জানিয়েছে-

কম্পিউটার, টেলিভিশন, ফ্যান, রেফ্রিজারেটর, এসি চলবে।

হাসপাতাল, থানা, পুরসভা, উৎপাদন কেন্দ্র-সহ জরুরি পরিষেবা কেন্দ্রগুলিতে আলো জ্বলবে।

সমস্ত স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে জননিরাপত্তার জন্য রাস্তার লাইট চালু রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিদ্যুৎ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সর্বোচ্চ (পিক) বিদ্যুতের চাহিদা হঠাৎ করে নেমে যাওয়ার কারণে বিদ্যুৎ গ্রিডে স্যুইচ-অফ-স্যুইচ-অন প্রভাব ফেলতে পারে। এমনিতেই লকডাউনের কারণে এক বছর আগের তুলনায় গত ২ এপ্রিল এই পরিমাণ ২৫ শতাংশ কমে ১২৫.৮১ জিডব্লিউ (গিগাওয়াটস)-এ ঠেকেছে।

জাতীয়স্তরে বিদ্যুতের চাহিদার সমন্বয়কারী সরকার পরিচালিত পাওয়ার সিস্টেম অপারেশন কর্পোরেশন (পোসোকো) এই ৯ মিনিটের ইভেন্টটি পরিচালনা করার জন্য সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টার মধ্যে অপারেশনের ধারাবাহিক রূপরেখা হিসাবে সারাদেশে লোড ডিসপ্যাচ সেন্টারগুলির জন্য ১৩ পৃষ্ঠার একটি নির্দেশিকা জারি করেছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.