অমৃতসর: বৈধ টিকিটধারী পরিবারটি দেড় ঘণ্টার জন্য ট্রেনের টয়লেট ব্যবহার করতে পারেনি। তার জন্য রেলকে খেসারত দিতে হল ৩০ হাজার টাকা। ঘটনাটি ২০০৯ সালের। ফয়সালা হল সাত বছর পর। জেলা ক্রেতা আদালত রেলকে যে ক্ষতিপূরণ দিতে বলেছিল, শুক্রবার তা বহাল রাখল রাজ্য ক্রেতা আদালত।

আইন ও বিচার মন্ত্রকের ডেপুটি লিগ্যাল অ্যাডভাইজার দেব কান্ত তাঁর পরিবার নিয়ে অমৃতসর থেকে দিল্লি যাচ্ছিলেন। অভিযোগকারী দেব কান্ত আদালতে বলেন, লুধিয়ানা স্টেশন থেকে এক বিশাল জনতা জোর করে তাঁদের সংরক্ষিত কামরায় উঠে পড়ে। সমস্ত খালি আসন দখল করে নেয়। কামরার মেঝেতে বসে পড়ে। ওয়াশবেসিন ও টয়লেটে যাওয়ার রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। এর জন্য তাঁদের মানসিক ও শারীরিক হয়রানির শিকার হতে হয়েছে।

দেব কান্তের পুত্র পেশায় আইনজীবী হরিশরন বাগ্‌গা এ দিন বলেন, “ওই জনতা আমার বাবা-মা-বোনকে ৯০ মিনিট টয়লেট ব্যবহার করতে দেয়নি। টয়লেটে যাওয়ার রাস্তা পুরো বন্ধ ছিল। কেউ এতটুকু সহযোগিতা করেনি। আমরা গোটা ব্যাপারটা টিটিই-র নজরে আনি। বলি রেল পুলিশ ডাকতে। উনি কোনো কথা শোনেননি। এ ব্যাপারে কিছু করার অক্ষমতা জানিয়ে তিনি চলে যান।” উত্তর রেলের কৌঁসুলি আদালতে বলেন, জনতাকে আম্বালা স্টেশনে নামিয়ে দেওয়া হয়, তার পর দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হয়। রেলের তরফে আদালতে বলা হয়, টাকা আদায় করার জন্য এই অভিযোগ করা হয়েছে। আদালত বলে, শুধুমাত্র বৈধ যাত্রীরাই যাতে ট্রেনে ভ্রমণ করতে পারেন সেটা দেখাই রেলের কর্তব্য। রেল সেই কর্তব্য পালন করতে পারেনি। “যে সমস্ত অবৈধ লোক সে দিন উঠেছিল, তারা ওই কামরায় বৈধ টিকিট নিয়ে ভ্রমণরত যাত্রীদের অসুবিধার সৃষ্টি করেছিল, হয়রান করেছিল, মানসিক উদ্বেগ তৈরি করেছিল। রেলকর্মীরা ওই কামরায় তাদের প্রবেশ রুখতে পারেননি।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here