tea-garden

ওয়েবডেস্ক: অনলাইনে চা বিক্রির ব্যাপারটি আরও সহজ করতে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের একত্র করার জন্য ভারতীয় চা কোম্পানিগুলি যে ই-নিলাম ব্যবস্থা চালাচ্ছে তাতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে চিনা চা কোম্পানিগুলি। এক ভারতীয় আধিকারিক এই কথা জানিয়াছেন।

চা উৎপাদনের ক্ষেত্রে বিশ্বে চিনের পরেই ভারতের স্থান। বুধবার বেজিং-এ প্রায় দু’ ডজন ভারতীয় কোম্পানির সঙ্গে বৈঠকে বসে বেশ কিছু চিনা কোম্পানি। সেই বৈঠকে ভারতের ই-নিলামের প্রক্রিয়াটি নিয়ে আলোচনা হয়। ভারতের হিন্দুস্থান টাইমসের প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলার সময় ভারতীয় টি বোর্ডের ডেপুটি চেয়ারপার্সন অরুণ কুমার রায় বলেন, “আমাদের ভারতে যে ই-নিলাম প্রক্রিয়া চলে সে ব্যাপারে জানার জন্য চিনা চা শিল্পের প্রতিনিধিরা ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। প্রস্তাবটি বেশ অভিনব।”

এর আগের দিন অর্থাৎ মঙ্গলবার ভারত-চিন চা-সহযোগিতা নিয়ে ‘ব্রুইং টি-বন্ডিং রিলেশন্স’ শীর্ষক এক সেমিনারের ফাঁকে অরুণবাবু বলেন, ই-নিলামের মাধ্যমে আমাদের যে সব চা বিক্রি হয় তার একটা প্রেজেন্টেশনও দেওয়া হবে তাদের কাছে। তা ছাড়া যদি চিন থেকে প্রতিনিধি দল এ দেশে আসে তা হলে তাদের গোটা ই-নিলাম প্ল্যাটফর্মটি সম্পর্কে আরও ভালো করে দেখানো যাবে। তাতে বোঝা যাবে এই পদ্ধতিতে চিনের সঙ্গে চায়ের বাণিজ্য কতটা সম্ভব।

দু’ দেশের মধ্যে চা-বাণিজ্য বাড়ানোর জন্যই সেমিনার এবং ক্রেতা-বিক্রেতা আলোচনার ব্যবস্থা করা হয়েছিল বেজিং-এ অরুণবাবু জানান, ২০১৭ সালের হিসাব অনুযায়ী চিনে ভারতের চা রফতানি বেড়েছে ৩০% বেড়ে ২০১৭ সালে হয়েছে ৯০ লক্ষ কেজি। তবু চিনের বাজার এখনও বহু ভারতীয় চা কোম্পানির কাছে অধরা থেকে গিয়েছে। ভারত যে সব দেশে চা রফতানি করে তার তালিকায় চিনের স্থান ১০ নম্বরে। আর চিন যাদের কাছ থেকে চা আমদানি করে তার তালিকায় ভারতের স্থান তিন নম্বরে। চিনের খোলা বাজারে ভারতের চা খুব একটা পাওয়া যায় না। বড়ো বড়ো চিনা চা কোম্পানিগুলি ভারতের চা কেনে। চিনে অসমের সিটিসি চা-ই বেশি রফতানি হয়।

রায় বলেন, চিনের নতুন প্রজন্মের কাছে নতুন ধরনের বা বলা ভালো নতুন স্বাদ গন্ধের অন্য রকমের চায়ের চাহিদা বাড়ছে। ফলে ভারতের কালো চা নতুন স্বাদে গন্ধে সেখানে রফতানি করা যেতে পারে। দার্জিলিং চা, অসম চা আর নীলগিরি চা এই তিন ধরনের আলাদা স্বাদ গন্ধের চায়ের বিপুল সম্ভার রয়েছে ভারতে।

এই প্রসঙ্গেই চিনে ভারতের চায়ের চাহিদা সম্পর্কে বলতে গিয়ে চিনের টি মার্কেটিং অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ওয়াং কিং বলেন, দার্জিলিং চা হল চায়ের মধ্যে সেরা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here