Narenadra Modi

ওয়েবডেস্ক: গত ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীকে সামনে রেখেই দিল্লির ক্ষমতা দখলের লক্ষ্যে এগিয়েছিল বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ। চার বছর বাদে সেই ছবিটা না কি আমূল বদলে গিয়েছে। “আগামী ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে এনডিএ-রই বেশ কয়েকটি শরিক দল দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হিসাবে চাইছে না মোদীকে”। এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য গত শুক্রবার পেশ করেছেন কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী উপেন্দ্র কুশওয়াহা।

upendra kushwaha
কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী উপেন্দ্র কুশওয়াহা

ওই উপেন্দ্র পটনায় বলেন, ‘এনডিএ-তে এমন কিছু দল বা লোক রয়েছেন ‌যাঁরা চাইছেন না নরেন্দ্র মোদী পুনরায় প্রধানমন্ত্রী হোন।’  যদিও সেই দল বা লোকগুলি কে, সে বিষয়ে খোলসা করে কিছু জানাননি উপেন্দ্র। কিন্তু তিনি জোরের সঙ্গেই বলেছেন, তারা এনডিএ-র মধ্যেই রয়েছেন।

চলতি সপ্তাহেই সংবাদ মাধ্যম মারফত জানা গিয়েছিল আগামী লোকসভা ভোটে বিহারে বিজেপির সঙ্গে অন্যান্য শরিক দলগুলির আসন বণ্টন প্রায় পাকা হয়ে গিয়েছে। সে ক্ষেত্রে বিহারের মোট ৪০টি আসনের মধ্যে বিজেপি ২০টি নিজের জন্য রেখে বাকি ২০টি জেডিইউ, এলজেপি এবং উপেন্দ্রর রাষ্ট্রীয় লোক সমতা পার্টিকে ছেড়ে দেবে। ওই পরিসংখ্যান থেকেই জানা গিয়েছিল, উপেন্দ্রর দল এনডিএ শরিক হিসাবেই ২টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে।

যদিও এ ধরনের পরিসংখ্যানকে গুজব বলেই উড়িয়ে দিয়েছেন উপেন্দ্র। তিনি বলেন, “এমন কোনো আসন বণ্টনের পরিকল্পনা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। অন্যান্য কয়েকটি দলের সঙ্গে কথা বলেছি। তারাও আমাকে জানিয়েছে, আসন সমঝোতা নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে বেশ কিছু দল ও লোক প্রথানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পুনরায় চাইছেন না। আমি মনে করি মোদীকে যাঁরা প্রধানমন্ত্রী হিসাবে চান না তাঁরাই আসন সমঝোতার গুজব রটাচ্ছেন”।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন