gujarat
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: গুজরাতের ২৬টি লোকসভা আসনেই ভোটগ্রহণ হয়েছে তৃতীয় দফায়। সচরাচর গুজরাতের লোকসভা নির্বাচনে প্রদত্ত ভোটের হার ৫০ শতাংশের আশেপাশে থাকলেও গত ২০১৪ সালে তা পৌঁছে যায় ৬৩.৩১ শতাংশে। যার নেপথ্যে ছিল গুজরাত থেকে গোটা ভারতে ছড়িয়ে পড়া ‘মোদী-ঝড়’। কিন্তু এ বার সেই ভোটের হার কিছুটা হলেও কমল। এটা কীসের ইঙ্গিত?

গত মঙ্গলবারের ভোটগ্রহণে গুজরাতের বারডোলিতে ভোট পড়েছে ৬৮.৯ শতাংশ, যা গোটা রাজ্যে রেকর্ড। কিন্তু গত ২০১৪-র তুলনায় এ বার প্রদত্ত ভোটের গড় কিছুটা হলেও কমেছে। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, ওই ভোটের হার প্রায় ৬২.৩৬ শতাংশ। কিন্তু গুজরাতের মতো রাজ্যে এই ৬০ শতাংশের উপর ভোট যে নির্ণায়ক ভূমিকা নিতে পারে, সেটাই আন্দাজ করছে বিজেপি এবং কংগ্রেস উভয়পক্ষই।

২০১৪-র লোকসভা ভোটে রাজ্যের ২৬টি আসনেই জিতেছিল বিজেপি। তৃতীয় দফার ভোটের হার দেখে রাজ্যের বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, “এই (৫০ শতাংশের বেশি) ভোটের হার প্রমাণ করছে, গুজরাতের মানুষ প্রধানমন্ত্রী মোদীর প্রতি নিজেদের সমর্থনকে আরও প্রসারিত করলেন। গতবারের মতো এ বারও ২৬টি আসনেই আমরা জিতব”।

অন্য দিকে আমরেলির কংগ্রেস প্রার্থী পরেশ ধানানি জানিয়েছেন, এই ভোটের আর প্রতিষ্ঠান-বিরোধিতার ছবিরই স্পষ্ট প্রতিফলন। তিনি বলেন, কষক, বেকার যুবক, আদিবাসী সম্প্রদায় নিজের মতাধিকার প্রয়োগ করে বিদায়ী সরকারকে বিদায় জানিয়েছেন।

Narendra Modi And Rahul Gandhi
নরেন্দ্র মোদী এবং রাহুল গান্ধী।

উল্লেখ্য, ওই দিন ভোট দিয়ে বেরিয়ে এসে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, “সন্ত্রাসবাদীদের আইইডি’র থেকেও অনেকগুণ বেশি শক্তিশালী ভোটার আইডি”। সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় গণতন্ত্রের অধিকার প্রয়োগের এই সচিত্র পরিচয়পত্রকে মোক্ষম অস্ত্র বলেও আরও একবার মনে করিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী। তার আগেই রাজস্থানের চিতোরগড়ে নির্বাচনী জনসভায় শ্রীলঙ্কায় জঙ্গি নাশকতার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেছিলেন, “আপনারা বোতাম টিপবেন সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করতে’।

যদিও কার আঙুল কোন বোতাম টিপেছে, সেটা জানতে ২৩ মে-র অপেক্ষা ছাড়া আর কোনো বিকল্পই নেই!

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here