ওয়েবডেস্ক: একটি জনস্বার্থ মামলার শুনানি চলাকালীন বসুন্ধরা রাজের সরকারকে প্রশ্ন করল রাজস্থানের উচ্চ আদালত। প্রশ্নটি এই রকম – সবজি না মশলা, কী হিসেবে ধরা হবে রসুনকে? সবজি হিসেবে ধরা হলে রসুনের ওপর পণ্য ও পরিষেবা কর ধার্য হওয়ার কথা নয়। চলতি সপ্তাহের মধ্যেই রাজ্য সরকারকে প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

যোধপুরের একটি ‘আলু, পেঁয়াজ এবং রসুন বিক্রেতা সংঘ’-এর পক্ষ থেকে আদালতে এই বিষয়ে আবেদন জানানো হয়েছিল। আবেদনকারীরা জানিয়েছিলেন, সবজি অথবা মশলা যে কোনো একটি ধরা হোক রসুনকে। আদালতের পক্ষ থেকে রাজস্থান সরকারের কাছে এ-ও জানতে চাওয়া হয়, সবজির তকমা দেওয়া হয়ে থাকলে সবজি বাজারের পরিবর্তে শস্যবাজারে মশলা হিসেবে রসুন বিক্রির অনুমতি দেওয়া হল কেন।

প্রশ্নের উত্তরে সরকারের অতিরিক্ত অ্যাডভোকেট জেনারেল শ্যামসুন্দর লাদেরচা বলেছেন, “চাষিদের সুবিধার্থে একটি সংশোধনের মাধ্যমে ২০১৬ সালে শস্যবাজারে রসুন বিক্রির অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। এতে চাষিদের মধ্যে সুস্থ প্রতিযোগিতা বেড়েছে।” লাদেরচা আরও বলেন, “সবজি বাজারের পরিবর্তে শস্যবাজারে বিক্রি করলে রসুনের ওপর বাড়তি কর ধার্য হয় না”।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here