আজই কি কংগ্রেস-জেডিএস সরকারের শেষ দিন কর্নাটকে?

0

বেঙ্গালুরু: সময় পেরিয়ে যাচ্ছে কিন্তু কিছুতেই বিদ্রোহী বিধায়কদের মানানো যাচ্ছে না। তাঁরা এখনও নিজেদের সিদ্ধান্তে অনড়। ফলে সোমবারই কর্নাটকে আস্থাভোট হয়ে গেলে সরকার যে পড়ে যাবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। আজই কি কর্নাটকে কংগ্রেস-জেডিএস সরকারের শেষ দিন, এমন প্রশ্নও উঠতে শুরু করে রাজনৈতিক মহলে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার আস্থা ভোটের নাটক শুরু হয়েছিল কর্নাটক বিধানসভায়। সে দিন সন্ধ্যার পর স্পিকার রমেশ কুমার অধিবেশন মুলতুবি করার ফলে সেই নাটক শুক্রবারে গড়ায়। এ দিকে বিরোধী বিজেপি চাইছিল বৃহস্পতিবারই আস্থাভোটের পালা চুকিয়ে নিতে। কিন্তু সেটা না হওয়ায় সে দিন রাতে বিধানসভায় ধরনা দেয় বিজেপি নেতৃত্ব। এ দিকে শুক্রবারের মধ্যে আস্থাভোট করে নেওয়ার জন্য দু’টি সময়সীমা বেঁধে দেন রাজ্যপাল বজুভাই বালা। কিন্তু সেই নির্দেশিকায় কর্ণপাত করার কোনো প্রয়োজনই মনে করেননি স্পিকার। ফলে সে দিনও অধিবেশন মুলতুবি হয়ে যায়। আর তাই সোমবার দিনটা কর্নাটকের কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে।

আরও পড়ুন রাজ্যসভায় সদস্য সংখ্যা বাড়াতে বিজেপির নতুন কৌশল!

হাতে দু’দিন পেয়ে কংগ্রেস এবং জেডিএস নেতৃত্ব ভেবেছিল বিদ্রোহীদের মানিয়ে নেওয়ার শেষ চেষ্টা করা হবে। কিন্তু সেটা হয়নি। এমনকি মুখ্যমন্ত্রী বদল করার নতুন একটি প্রস্তাবও পাঠানো হয়েছিল ওই বিধায়কদের কাছে। কিন্তু তার পরেও তাঁরা জানিয়ে দেন কোনো ভাবেই বিধানসভায় হাজির হবেন না তাঁরা।

বিদ্রোহীরা অধিবেশনে না থাকলে কংগ্রেস-জেডিএসের ১০০ আসনে নেমে আসবে। আর বিজেপির থাকবে ১০৫। দু’জন নির্দল বিধায়কও বিজেপিকে সমর্থন করার ঘোষণা করেছেন। ফলে বিজেপির পক্ষে সংখ্যাটা হবে ১০৭। এই হিসেবে আস্থাভোটে কী হবে সেটা তো সহজেই অনুমেয়।

এখন কথা হল আজ, সোমবারই কি বহুপ্রতীক্ষিত আস্থা ভোট হয়ে যাবে কর্নাটকে, নাকি আরও এক দিনের জন্য পিছিয়ে যাবে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.