GSAT-6A

ওয়েবডেস্ক: সাধারণ দেশবাসী, বিশেষ করে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে নিদারুণ দুঃসংবাদ। উৎক্ষেপণের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ভারতের সব চেয়ে শক্তিশালী যোগাযোগ উপগ্রহ ‘জিস্যাট-৬এ’-এর সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রের (ইসরো) সঙ্গে। যদিও ইসরোর তরফে জানানো হয়েছে, সংযোগ পুনঃপ্রতিষ্ঠার চেষ্টা চলছে, সূত্রের খবর বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হওয়ার ফলেই এই অবস্থা হয়েছে। সেনাবাহিনীর কাজে লাগার পাশাপাশি দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় এবং দ্বিতীয় মুন মিশনে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার কথা এই যোগাযোগ উপগ্রহের।

বৃহস্পতিবার শ্রীহরিকোটা থেকে সফল ভাবে উৎক্ষেপণ করা হয় জিএসএলভি-এফ০৮ রকেট। এই রকেটই ‘জিস্যাট-৬এ’ উপগ্রহটিকে মহাকাশে স্থাপন করে। শুক্রবার সকাল ৯.২২ মিনিটে উপগ্রহটিকে প্রথম কক্ষপথে সফল ভাবে স্থাপন করা হয়। ল্যাম (লিকুইড অ্যাপোগি মোটর) ইঞ্জিন ঠিক ভাবে কাজ করে এবং উপগ্রহটি ওই কক্ষপথে নির্দিষ্ট জায়গাতেও পৌঁছে যায়।

কথা ছিল, শনিবার সকাল ১০.৫১ মিনিটে উপগ্রহটিকে দ্বিতীয় কক্ষপথে স্থাপন করা হবে। ল্যাম ইঞ্জিন চালু করার সঙ্গে সঙ্গে এই কাজটিও সফল ভাবে সম্পন্ন হয়। কিন্তু চার মিনিট ধরে ডেটা পাঠানোর পর উপগ্রহের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তার পর থেকেই ‘জিস্যাট-৬এ’-এর সঙ্গে যোগাযোগ নেই। রবিবার ইসরোর তরফে জানানো হয়, “৩১ মার্চ ৫৩ মিনিট ধরে ল্যাম ইঞ্জিন কাজ করার পর ‘জিস্যাট-৬এ’ উপগ্রহটিকে দ্বিতীয় কক্ষপথে স্থাপন করা হয়। এর পরেই ১ এপ্রিল নির্ধারিত তৃতীয় তথা চূড়ান্ত ফায়ারিং-এর জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার পথে উপগ্রহের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। যোগাযোগ পুনঃস্থাপিত করার চেষ্টা চলছে।”

ইসরোর নতুন চেয়ারম্যান কে শিবন এই বিপর্যয় নিয়ে শনিবার ম্যারাথন বৈঠক করেন। তিনি দায়িত্বভার নেওয়ার পর এটিই ছিল প্রথম উৎক্ষেপণ। ‘জিস্যাট-৬এ’ একটি উচ্চ শক্তিশালী যোগাযোগ উপগ্রহ। দশ বছর ধরে এর কাজ করে যাওয়ার কথা। ভারতে মোবাইল কমিউনিকেশনে এস-ব্যান্ডে পাঁচটি বিম এবং সি-ব্যান্ডে একটি বিম সহ মাল্টি ব্যান্ড কভারেজের ব্যবস্থা হওয়ার কথা এই উপগ্রহের মাধ্যমে।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here