gandhinagar-station

জয়পুর : জয়পুরের নাম কে না জানে? রাজস্থানের সব থেকে বড়ো শহর ও রাজধানী। তা ছাড়া বিশাল বিশাল কেল্লা, যন্তরমন্তর, হাওয়ামহল কি না নেই? এ বার আরও একটা কারণে নাম করল জয়পুর। তা হল দেশের প্রথম কেবলমাত্র মহিলাচালিত নন-সুবারবন রেলস্টেশন হতে চলেছে জয়পুরের গান্ধীনগর স্টেশন। মাত্র ৪০ জন মহিলা মিলে সামলাবেন গোটা স্টেশনের দায়িত্ব। টিকিট বিক্রি, রেলের সিগন্যালিং ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ থেকে শুরু করে স্টেশনের নিরাপত্তা, সবটাই দেখভাল করবেন মহিলারা।

৪০ জনের মধ্যে থেকে চার জন ট্রেন চলাচল নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব সামলাবেন। আট জন টিকিট বুকিং, ছয় জন থাকবেন সংরক্ষণ সংক্রান্ত কাজে, ছয় জন ঘোষণা আর টিকিট চেক করবেন, রেলপুলিশের দায়িত্বে থাকবেন ১০ জন মহিলা। বাকি ছয় জন অন্যান্য কাজ সামলাবেন।

আরও পড়ুন : বাজেটের মধ্যেই বিলাসবহুল ‘ওয়েটিং লাউঞ্জ’ নয়াদিল্লি স্টেশনে, আপনি হয়তো জানেনই না

রেল জানিয়েছে, কর্মীরা তিনটি শিফটে কাজ করবেন। এক এক শিফট আট ঘণ্টা করে। নিলম জাতভ গান্ধীনগর স্টেশনের প্রথম মহিলা স্টেশন সুপারিন্টেনডেন্ট (এসএস)। এই ভাবে একটা গোটা স্টেশন শুধু মহিলাদের দায়িত্বে দেওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়ণের ক্ষেত্রে প্রথম উদ্যোগ নিয়েছিলেন উত্তর-পশ্চিম রেলের প্রধান জনসংযোগ আধিকারিক (চিফ পাবিলিক রিলেশন আফিসার) ও ডিভিশন্যাল রেলওয়ে ম্যানেজার ও রেলের অন্য আধিকারিকরা মিলে। সঙ্গে রাজস্থান সরকারও এই স্টেশনে জিআরপি বসিয়ে আর মহিলা নিরাপত্তাকর্মী নিয়োগ করে এই উদ্যোগকে বাস্তবায়িত করতে অনেকটা সাহায্য করেছে।

তা হল, এখন প্রবাদ বদলের সময় এসেছে। যে রাঁধে সে চুলও বাঁধে না বলে বলা ভালো যে সংসার করে সে স্টেশনও সামলায়। যুদ্ধবিমান থেকে ট্রেন চালানো, কী না করছে মেয়েরা। এ বার তো একটা সংসারের গোটা দায়িত্বের সঙ্গে সঙ্গে একটা গোটা স্টেশনের দায়িত্বেও মহিলারা। ব্যাপারটা মন্দ নয়। এ ব্যাপারে জয়পুর যদি প্রথম হয় তা হলে দ্বিতীয় কোন শহর হবে এখন সেটাই অপেক্ষার।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন