ওয়েবডেস্ক: মনমোহন সিং, যশবন্ত সিনহা, পি চিদম্বরম এবং মরারজি দেশাইয়ের পর অরুণ জেটলিই সেই অর্থমন্ত্রী , যিনি স্বাধীন ভারতে গত ৭১ বছরে পর পর পাঁচটি বাজেট পেশ করতে চলেছেন। সে হিসাবে তিনি ওই তালিকার পঞ্চম স্থান অধিকার করতে চলেছেন।

এনডিএ-এর নেতৃত্বাধীন মোদী সরকার চলতি ২০১৮ সালে আটটি রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন এবং আগামী ২০১৯-এর সাধারণ নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই যে এ বারের বাজেট রচনা করছে, তা বলাই বাহুল্য। সে দিক থেকে এই বাজেট নির্বাচনী মহিমায় ভরপুর।

আয়করের পর্যায়ে পরিবর্তন বা চাকুরিজীবীদের জন্য বিশেষ ছাড়, কর্পোরেট করে ছাড়, পর্যটনকে চাঙ্গা করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ, শিক্ষাখাতে পরিকাঠামো পরিবর্তনের জন্য নতুন নীতি, রেল পরিষেবায় যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্য বৃদ্ধি ইত্য়াদি বিষয়গুলি এ বারের বাজেটে অধিক গুরুত্ব বহণ করছে।

তবে এ সবের বাইরে সর্বোচ্চ আলোচ্য বিষয়টি হল কৃষি ক্ষেত্রে সরকারি নীতি ও বরাদ্দ। সরকার গ্রামীণ মানুষের সামাজিক ও অর্থনৈতিক জীবনের মানোন্নয়নে কোন কোন পরিকল্পনা নিতে চলেছে বা কোন তহবিলে কতটা অর্থ বরাদ্দ করতে চলেছে, সে দিকেই নজর থাকবে আগ্রহীদের।

জ্বালীনি তেলের উপর সরকারি ডিউটি ছাড়ের বিষয়টি নিয়েও আগ্রহের অন্ত নেই। রান্নার গ্যাসের দাম  প্রতি মাসে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েও পিছিয়ে এসেছে সরকার। বাজেটে সে বিষয়ে একটা স্পষ্ট নীতি ঘোষিত হতে পারে।

রাজস্ব ঘাটতি এবং ব্যয় বরাদ্দের ঘোষণার আগাম আঁচ পাওয়া যায়নি। সেটাও পরিষ্কার হতে থাকবে বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টার পর থেকেই।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন