Justice D.Y.Chandrachud Overrules His Father’s Judgment... Read more at: https://www.livelaw.in/rare-moment-history-justice-d-y-chandrachud-overrules-fathers-judgment-adm-jabalpur-case/

নয়াদিল্লি: নজির গড়লেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়। গত বৃহস্পতিবার ভারতীয় দণ্ডবিধির অন্তর্ভুক্ত ৪৯৭ ধারাকে বাতিল করা হয়েছে। এই একই ধারাকে ১৯৮৫ সালে বৈধ বলে রায় দেওয়া হয়েছিল। সে বার সেই রায় দিয়েছিলেন বিচারপতি যশোবন্ত বিষ্ণু চন্দ্রচূড়, আর এ বার সেই রায়কেই খারিজ করে দিলেন তাঁরই বিচারপতি পুত্র ধনঞ্জয় যশোবন্ত চন্দ্রচূড়।

১৯৮৫ সালে সুপ্রিম কোর্টে ‘সৌমিথ্রি বিষ্ণু বনাম ভারত সরকার’র মামলায় বিচারপতি যশোবন্ত চন্দ্রচূড়ের বেঞ্চের তরফে পরকীয়াকে অপরাধ বলে আখ্যা দিয়ে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৭ ধারাকে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়েছিল৷ কার্যত সেই রায়কে খারিজ করে দিয়ে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ জানায়, “কোনো পুরুষ বিবাহিত মহিলার সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হলে, সেটাকে অপরাধ বলা যায় না।”  এই পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চের অন্যতম সদস্য যশোবন্তের ছেলে ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়।

পরকীয়ায় লিপ্ত হওয়ার অধিকার শুধুমাত্র পুরুষেরই রয়েছে, অন্য দিকে নারীর শুধুমাত্র শিকার হিসাবেই গণ্য হবেন, যশোবন্তের দেওয়া রায়ের এই অংশ বিশেষকেই খারিজ করেছেন ছেলে।

তবে এই প্রথমবার নয়, বাবার দেওয়া রায়কে এর আগেও খণ্ডন করেছেন ছেলে। বেশ কয়েক বছর আগে গোপনীয়তা রক্ষার অপর একটি মামলায় বাবার দেওয়া রায়কে সটান খারিজ দিয়েছিলেন ছেলে। যশোবন্ত এই সংক্রান্ত একটি মামলায় রায় দিতে গিয়ে বলেছিলেন, গোপনীয়তার অধিকার সংবিধান প্রদত্ত মৌলিক অধিকার হতে পারে না। বাবার সেই রায়ের একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে ছেলে সম্প্রতি একটি মামলার রায় দিয়েছেন, দেশের যে কোনো নাগরিকের গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার সংবিধানে উল্লেখিত মৌলিক অধিকারগুলির মধ্যে একটি।

দেশের সর্বোচ্চ আদালতে বাবা ও ছেলের এমন দ্বৈরথ এর আগে কখনোই দেখেনি দেশ। সারা বিশ্বেও এমন নজির খুঁজে পাওয়া মুশকিল বলে মত আইনজ্ঞদের।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন