২৭,৫০০ টাকার ক্যামেরা অর্ডার করেছিলেন, প্যাকেট খুলে যা পেলেন…

ছবি: মনোরমা অনলাইন থেকে

ওয়েবডেস্ক: অর্ডার করেছিলেন সাড়ে ২৭ হাজার টাকার ক্যামেরা। বাড়িতে যে প্যাকেট এল, তাতে ম্যানুয়াল এবং ওয়ারেন্টি কার্ড থাকলেও ছিল না কোনো ক্যামেরা। বদলে দেখা গেল, কয়েটা টালির টুকরো।

গত বছর এক ব্যক্তি ফ্লিপকার্ট থেকে আইফোন ৮ অর্ডার করে পরিবর্তে বার সাবান পেয়েছিলেন। ২০১৫ সালে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল যে, অ্যামাজন এবং ফ্লিপকার্ট এজেন্টরা নয়ডা এবং গাজিয়াবাদে পণ্য বিতরণ করতে ভয় পাচ্ছেন। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছিল, তাঁরা এনসিআর অঞ্চলগুলি-সহ উত্তরপ্রদেশে গ্রাহকদের ১০ হাজার টাকার বেশি মূল্যের পণ্য সরবরাহ করতে সাহস পেতেন না। আসলে বিভ্রান্তিকর পণ্য সরবরাহের কারণে সেখানে ডেলিভারি এজেন্টরা যেতে ভয় পেতেন। ক্যামেরা অর্ডার করে তেমনই প্রতারণার শিকার হলেন কেরলের কান্নুরর এক ব্যক্তি।

মালয়ালা মনোরমার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কান্নুরের বাসিন্দা বিষ্ণু সুরেশ ২০ নভেম্বর ফ্লিপকার্টে ২৭,৫০০ টাকা দামের একটি ক্যামেরার জন্য অর্ডার দিয়েছিলেন। তবে, যখন প্যাকেটটি পাওয়া গেল, তখন সুরেশ শুধু আশ্চর্য হয়ে গেলেন না,মাথায় হাত দিয়ে বসেও পড়লেন।

জানা গিয়েছে, ২৪ নভেম্বর ফ্লিপকার্টের সহায়ক সংস্থা একার্ট লজিস্টিক্স -এর এক ডেলিভারি এজেন্ট টাইলের টুকরোযুক্ত একটি প্যাকেট দিয়ে আসে সুরেশের হাতে। প্যাকেটে ক্যামেরার ম্যানুয়াল এবং ওয়ারেন্টি কার্ডও ছিল। আর ছিল বেশ কয়েকটা টালির টুকরো। তবে ক্যামেরা ছিল না। ফ্লিপকার্টের কাস্টমার কেয়ারের সঙ্গে যোগাযোগ করার পর তাঁকে একটি নতুন ক্যামেরা পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন উৎসবের মরশুমে সব থেকে বেশি অনলাইন অর্ডার ফিরিয়েছে কলকাতা

প্রসঙ্গত, গত বছর বলিউড নায়িকা সোনাক্ষী সিনহা পৃথিবীবিখ্যাত বাঙালির সংস্থা বোস-এর ইয়ারফোন কিনেছিলেন আমাজন থেকে ১৮,০০০ টাকা দিয়ে। কার্যত তাঁর বাড়িতে বোস-এর বাক্সে এসেছিল একটুকরো আবর্জনা!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.