Narendra Modi and Karnataka minister
নরেন্দ্র মোদী (ফাইল ছবি) এবং কর্নাটকের মন্ত্রী আহমেদ খান

ওয়েবডেস্ক: শনিবার কর্নাটকের মন্ত্রী বি জে জমির আহমেদ খান মন্তব্য করেন, “প্রধানমন্ত্রীর একজন স্ত্রী ছিলেন। তিনি মোদীকে ছেড়ে দিয়েছিলেন। কারণ তাঁর মুখটা দেখতে ভালো না। মানুষ কি এই মুখটা দেখে ভোট দিতে চাইবে?”

একই সঙ্গে আহমেদ বলেন, “দুইবারের বিজেপি সাংসদ শিভকুমার উদাসী একটা কথা বারবার বলে ভোট চাইছেন-  ‘প্রধানমন্ত্রীকে দেখে, মোদীর মুখ দেখুন এবং আমাকে ভোট দিন’। আরে তিনি তো বলতেই পারেন, এত দিন সাংসদ থাকাকালীন এলাকার মানুষের জন্য কী করেছেন”?

আহমেদের এমন মন্তব্যের সমালোচনায় সরব হয়েছে বিজেপি থেকে শুরু করে সাধারণ নেটিজেনরা। তাঁদেরই মধ্য কেউ কেউ এমনও মন্তব্য করেছেন, “যদি মুখ দেখেই মানুষ ভোট দিত তা হলে কুমারস্বামী কখনোই কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী হতে পারতেন না”।

কেউ আবার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলছেন, “চশমা পরে হিরো সেজে যতই ঘুরে বেড়াও আবার আসছেন সেই মোদী-ই”।

তবে এহেন মন্তব্যের জন্য কর্নাটকের মন্ত্রী আহমেদকে খিস্তিখেউর করতেও ছাড়ছেন না নেটিজেনদের কেউ কেউ। আর যাইহোক, মোদীকে আক্রমণ করতে গিয়ে তাঁর স্ত্রীর রুচিবোধ নিয়ে এমন বিরূপ মন্তব্য করা যে কোনো মন্ত্রী পর্যায়ের রাজনীতিককে মানায় না, সেটাই বোঝাতে চেয়েছেন সমালোচকরা।


কর্নাটকের মন্ত্রী আহমেদ

যদিও আহমেদের এমন মন্তব্যের উৎস যে অন্যত্র, তা ভালো ভাবেই টের পাচ্ছেন কর্নাটকের মানুষ। কারণ আগের দিনই বিজেপি বিধায়ক রাজু কাগে অযৌক্তিক ভাষায় আক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীকে। তিনি দাবি করেছিলেন, “প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কত ফেয়ার অ্যান্ড হ্যান্ডসাম। আর কুমারস্বামী কালো মহিষের মতোই। ১০০ বার সাবান মেখে স্নান করলেও একই রকম থাকবেন”।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here