crpf attacked

শ্রীনগর: রমজান মাসে সংঘর্ষবিরতির কথা ঘোষণা করে কাশ্মীরের মন জয়ের চেষ্টা শুরু করেছিল কেন্দ্র। তার মধ্যেই তাল কেটে গেল একটি ঘটনায়। যেখানে বিক্ষোভকারীদের কাছ থেকে পালাতে গিয়ে তিন জনকে চাপা দেওয়ার অভিযোগ উঠল সিআরপিএফের ভ্যানের বিরুদ্ধে। এর মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

পুলিশ আধিকারিকদের মতে, শুক্রবার নিজেদের এক অফিসারকে নামাতে শ্রীনগরের নওশেরায় এসেছিল সিআরপিএফের ভ্যানটি। ওই অফিসারকে নামিয়ে দিয়ে ফিরে যাওয়ার পথেই বিক্ষোভকারীদের মুখে পড়ে তারা।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, বিক্ষোভকারীরা ওই গাড়িকে ঘিরে ধরেছে আর তার চালক প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিক্ষোভকারীদের থেকে দূরে সরে যাওয়ার জন্য। এর পরে আরও একটা ভিডিও এসেছে যেখানে দেখা যাচ্ছে পাথর ছোড়া বিক্ষোভকারীদের মধ্যে দিয়েই গাড়িটি চলে যাচ্ছে। কয়েক জন বিক্ষোভকারী একজন আহতকে নিরাপদে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, এমনও দেখা যাচ্ছে। এই দু’টি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই উপত্যকা জুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়ে যায়।

এই ব্যাপারে সিআরপিএফ বা কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রীর তরফ থেকে এখনও কিছু বিবৃতি দেওয়া হয়নি। তবে রাজ্যের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ। টুইটারে তিনি বলেন, “রমজান মাস, বন্দুক তো ব্যবহার করা যাবে না, তাই জিপ ব্যবহার করো।”

শুধুমাত্র কয়েকটা ছবির মধ্যেই পুরো ঘটনাটা প্রকাশিত হয় না বলে দাবি করেছে কাশ্মীর পুলিশ। অন্য দিকে গোটা ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন ন্যাশনাল কনফারেন্সের মুখপাত্র জুনায়েদ আজিম মাট্টু। তিনি বলেন, “এটা সত্যি যে সিআরপিএফের জিপকেই প্রথমে আক্রমণ করা হয়। কিন্তু বিক্ষোভকারী মানুষের মধ্যে দিয়ে জিপ নিয়ে যাওয়ার ওপরে কোনো নিষেধ করেনি পুলিশ। তাই গোটা ঘটনায় দায় বর্তায় পুলিশের ওপরে।”

এ দিকে এই ঘটনায় প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহের কাশ্মীরের সফরকে। কয়েক দিনের মধ্যেই রাজ্যে আসার কথা তাঁর। এই সফরে তাঁর সঙ্গে বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাদেরও বৈঠক হওয়ার ব্যাপারে একটা ক্ষীণ আশা তৈরি হয়েছে। এই ঘটনা, সেই আশায় জল ঢেলে দেয় কি না সেটাই দেখার।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here