বছর ঘুরতেই আবার বন্যার আতঙ্কে ত্রস্ত কেরল

0

ওয়েবডেস্ক: গত বছর আগস্টের কথা কেরলবাসী এখনও ভুলতে পারেননি। বহু বছরে ও রকম বন্যা দেখেনি দক্ষিণের এই রাজ্যটি। বছর ঘুরে আবার আগস্ট পড়তেই সেই বন্যার আতঙ্ক গ্রাস করেছে রাজ্যবাসীকে। রাজ্যের উত্তর এবং পার্বত্য অঞ্চলের পরিস্থিতি সব থেকে খারাপ।

এ বছর বর্ষার শুরু থেকে সে ভাবে বৃষ্টি হয়নি কেরলে। জুলাইয়ের শেষ প্রান্তে এসে রাজ্যে বৃষ্টির ঘাটতি পৌঁছে গিয়েছিল ৪৫ শতাংশে। কিন্তু তার পর থেকে সেই যে বর্ষা সক্রিয় হয়েছে, একেবারে মানুষের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি করে দিয়েছে তা।

রাজ্যের চারটে জেলা বন্যা পরিস্থিতি এবং ধসে বিধ্বস্ত। জেলাগুলি হল ওয়েনাড়, মলাপুরম, কোড়িকোড় এবং ইদুকি। মলাপুরম জেলার নিলাম্বুর শহরের পরিস্থিতি সব থেকে খারাপ। বন্যার ফলে বেশির ভাগ বাড়ির এক তলার একটা বড়ো অংশ জলের তলায় চলে গিয়েছে। বাড়ির ছাদগুলি দেখা যাচ্ছে। দু’শো পরিবারকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উদ্ধারকাজে নামানো হয়েছে এনডিআরএফকে।

আরও পড়ুন “এমন প্রতিবেশী যেন কারও কপালে না জোটে!”

ওয়েনাড়ে প্রায় ২,৩০০ মানুষ বন্যাদুর্গত। জেলা জুড়ে ১৬টি ত্রাণশিবির খোলা হয়েছে। সেখানে সাধারণ মানুষকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ইদুকি জেলার অবস্থাও খুব খারাপ। শৈলশহর মুন্নারেও বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। গত বছরও মুন্নার অনেক দিনের জন্য যোগাযোগের বাইরে চলে গিয়েছিল।

এরই মধ্যে চিন্তা বাড়িয়েছে আগামী দু’ দিনের পূর্বাভাস। বলা হয়েছে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি চলবে। এই পরিস্থিতি মাথায় রেখে এবং ত্রাণের কাজকর্ম পর্যবেক্ষণ করতে এ দিন দুপুরে একটি বিশেষ বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। সেই বৈঠকের পর মুখ্যমন্ত্রীর অফিস থেকে দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “নিলাম্বুর এবং ইদুকিতে এনডিআরএফের জওয়ান পাঠানো হয়েছে। আরও বেশি এনডিআরএফ বাহিনী পাঠানোর জন্য আবেদন করা হয়েছে।” বন্যায় এখনও পর্যন্ত একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.