সবরিমালা মন্দিরে সব বয়সি মহিলাদের প্রবেশাধিকারে সমর্থন জানাল কেরল সরকার। সোমবার এই মর্মে সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা পেশ করল তারা। যদিও সরকারের এই অবস্থানের তীব্র বিরোধিতা করেছে ত্রিবাঙ্কুর দেবস্বম বোর্ড।

উল্লেখ্য ২০০৭-এ মহিলাদের প্রবেশাধিকারে সমর্থন জানিয়ে প্রথমবার সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা পেশ করে বি এস অচ্চুত্যানন্দনের নেতৃত্বে কেরলের বিগত বাম সরকার। এরপর ২০১১-এ সে রাজ্যে সরকার পাল্টে যায়। ওমেন চান্ডির নেতৃত্বে কংগ্রেস সমর্থিত ইউডিএফ জোট সরকার গঠন করে। ২০১৪-এ তারা সুপ্রিম কোর্টে আবার হলফনামা পেশ করে আগের সরকারের অবস্থানের থেকে একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে যায়। মহিলাদের প্রবেশাধিকারে নিষেধাজ্ঞাকে সমর্থন জানায় তারা। এ বছর ফের বাম জোট কেরলে সরকার গঠন করে। বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন, তাঁর পূর্বসূরি অচ্চুত্যানন্দনের পথই অনুসরণ করেছেন।     

সবরিমালার আয়াপ্পা মন্দিরে দশ থেকে পঞ্চাশ বছরের মহিলাদের প্রবেশাধিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা রয়েছে দেবস্বম বোর্ডের তরফে। বোর্ডের দাবি কোনো রজঃস্বলা নারীকে এই মন্দিরে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। এই পরিপ্রেক্ষিতে এ বছরের গোড়ায় বোর্ডের প্রধান প্রায়ার গোপালকৃষ্ণন এক বিতর্কিত মন্তব্য করে বসেন। তিনি বলেন, “কোনো মহিলা রজঃস্বলা কি না এটা বোঝার জন্য যেদিন যন্ত্র আবিষ্কার হবে সেদিন থেকে মহিলারা মন্দিরে প্রবেশাধিকার পাবেন।”

এই বিতর্কিত মন্তব্যের তীব্র বিরোধিতা হয় দেশ জুড়ে। ইতিমধ্যে, মহিলাদের প্রবেশাধিকারের ব্যাপারে নমনীয় মনোভাব দেখায় শনিশিংনাপুর মন্দির কমিটি আর হাজি আলি দরগা কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সবরিমালার তরফে কোনো নমনীয় মনোভাব দেখানো হয়নি। যদিও এ বছর ১২ ফেব্রুয়ারি, একটি মামলার পরিপ্রেক্ষিতে শীর্ষ আদালত জানায় ধর্মীয় স্থানে মহিলাদের প্রবেশাধিকারে নিষেধাজ্ঞা সম্পূর্ণ বেআইনি।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন