তিরুঅনন্তপুরম : সালোয়ার বা চুড়িদার পরে মেয়েরা শ্রীপদ্মনাভস্বামী মন্দিরে ঢুকতে পারবেন না – বৃহস্পতিবার এই রায় দিল কেরল হাইকোর্ট। কেরলের তিরুঅনন্তপুরমের শ্রীপদ্মনাভস্বামী মন্দিরে মেয়েরা পুজো করতে গেলে তাঁদের পরতে হবে ধুতি অথবা শাড়ি, দীর্ঘদিন ধরে এই প্রথা চলে আসছিল। অতি সম্প্রতি সেই চিরাচরিত প্রথা বদলে ফেলা হয়। শিথিল করা হয় মেয়েদের পোশাকের বাঁধাধরা নিয়ম। কিন্তু এক সপ্তাহ কাটতে না কাটতেই সেই বদলে স্থগিতাদেশ দিয়ে পুরোনো নিয়মই বহাল করল হাইকোর্ট।

শ্রীপদ্মনাভস্বামী মন্দিরে ঢোকার জন্য মেয়েদের পোশাক নিয়ে বৈষ্যমমূলক আচরণের প্রতিবাদে রিয়া রাজে নামে এক মহিলা আইনজীবী আবেদন জানিয়েছিলেন হাইকোর্টে। তাঁর বক্তব্য ছিল, মন্দিরে পূজার্চনার জন্য সভ্য-ভদ্র পোশাক পরাই যথেষ্ট। তার জন্য বিশেষ ধরনের পোশাক পরার কোনো প্রয়োজনীয়তা নেই। তার পরই মন্দিরের এক কার্যনির্বাহী কর্তা কে এন সতীশ ৩০ নভেম্বর ঘোষণা করেন, মন্দিরে প্রবেশ করতে হলে মেয়েদের আর আগের মতো মুন্ডু মানে ধুতি বা শাড়ি পরতে হবে না। তাঁরা সালোয়ার বা চুড়িদার পরেও মন্দিরের ভিতরে ঢুকতে পারবেন। এত দিন সালোয়ার বা চুড়িদার পরা থাকলেও তার ওপর দিয়ে শাড়ি বা ধুতি চাপিয়ে তবেই ঢুকতে পারতেন মেয়েরা। এই নিয়ম পরিবর্তনের পর ১ ডিসেম্বরই প্রথম বার মেয়েরা সালোয়ার-চুড়িদারে মন্দিরের ভিতরে ঢুকেওছিলেন।

 

কিন্তু সেই সিদ্ধান্তে অখুশি কিছু মানুষ এর বিরুদ্ধে আদালতে আবেদন জানান। তাঁদের বক্তব্য ও-ই মন্দির কর্তা কখনোই সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। মন্দিরের ঐতিহ্য অনুযায়ী পুরোনো প্রথাই চালু রাখা উচিত। তার পরই কেরল হাইকোর্ট রায় দেয়, মেয়েরা সালোয়ার বা চুড়িদার পরে মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবেন না। এই বিষয়ে মন্দিরের প্রধান পুরোহিতের সিদ্ধান্তই বহাল থাকবে। এই রায়ের পর ও-ই আইনজীবী রিয়া রাজে জানান,তিনি সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানাবেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here