ফের নজির সৃষ্টি কেরলের, করোনাযুদ্ধে সাউথ কোরিয়ার মডেল গ্রহণ করল তারা

0

খবর অনলাইনডেস্ক: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সবার প্রথম সাফল্যের মুখ দেখেছিল সাউথ কোরিয়া (South Korea)। কারণ তারা বিপুল পরিমাণে যথেচ্ছ ভাবে পরীক্ষা করে সাধারণ সুস্থ মানুষকে রোগীদের থেকে আলাদা করে ফেলেছিল। চিনের ঠিক পরেই সাউথ কোরিয়ায় করোনা সংক্রমণ শুরু হলেও তারা সেই সংক্রমণে রাশ টানতে পেরেছে। ফলে এত দিনে সেই দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজার ছুঁয়েছে। এ ভাবেই সাউথ কোরিয়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কাছে মডেল হয়ে যায়।

অনেকটা সে রকম মডেল গ্রহণ করে নজির স্থাপন করল কেরল (Kerala)। পিনারাই বিজয়ন (Pinarayi Vijayan) নেতৃত্বাধীন সরকার বুঝিয়ে দিল, দেশের বাকি রাজ্যের থেকে তারা অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে।

সাউথ কোরিয়ার আদলে কেরলে তৈরি হল করোনা কিয়স্ক। এখানেই করোনা সন্দেহভাজনদের থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। কেরলের এর্নাকুলামে (Ernakulam) ৪টি হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে এই কিয়স্কগুলি তৈরি করা হয়েছে। কিয়স্কগুলিতে আছে আইসোলেশন ওয়ার্ড ও সোয়াব পরীক্ষার ল্যাব।

এই কিয়স্কগুলির নাম দেওয়া হয়েছে ‘ওয়াক ইন স্যাম্পল কিয়স্ক’ বা উইস্ক (Walk-in Sample Kiosk)। কাচ দিয়ে ঘেরা কিয়স্কগুলিতে দাঁড়িয়ে স্বাস্থ্যকর্মীদের নমুনা সংগ্রহ করার একটি করে আলাদা স্থানও রয়েছে। এমনকি করোনা-আক্রান্ত ও সন্দেহভাজনদের নমুনা সংগ্রহের সময় স্বাস্থ্যকর্মীরা যাতে সরাসরি সংস্পর্শে না আসেন সেই ব্যবস্থাও রয়েছে কিয়স্কে। সন্দেহভাজনদের থেকে লালার নমুনা সংগ্রহের পর স্বাস্থ্যকর্মীদের হাতের দস্তানা কিয়স্কের বাইরে থেকে স্যানিটাইজ করিয়ে আনা হবে।

কেরলের জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক এস সুধাস জানান, ”করোনা মোকাবিলায় ভারতে এই ব্যবস্থা প্রথম। এই পদ্ধতিতে গণ স্ক্রিনিং-এর ব্যবস্থা থাকবে। ফলে দ্রুত চিহ্নিত করা যাবে করোনা সংক্রমিতকে, কমবে পিপিই কিটের চাহিদা। এতে অল্প সময়েই অনেক পরীক্ষা করা সম্ভব হবে।”

এ রকম প্রতিটি উইস্ক তৈরি করতে সরকারের তরফে চল্লিশ হাজার টাকা খরচ পড়ছে বলে জানানো হয়। প্রতিটি কিয়স্কে ৪০ থেকে ৫০টি নমুনা রাখারও জায়গা রয়েছে।

উল্লেখ্য, সাউথ কোরিয়ায় এই ধরনের কিয়স্ক তৈরি করা হয় করোনায় গণসংক্রমণ পরীক্ষার জন্য। ফলে দেশে সংক্রমিতদের দ্রুত চিহ্নিত করার কাজে সফল হয়েছিল ওই দেশ। এমনিতেও দেশের যে সব অঞ্চলে করোনা রোগীর সংখ্যা অনেকটাই বেশি, সেখানে পরীক্ষার গতি বৃদ্ধি করা চেষ্টা করছিল আইসিএমআর। কিয়স্ক তৈরির মাধ্যমে সেই চেষ্টায় গতি আসবে বলেই মত বিশেষজ্ঞদের।

আরও পড়ুন অবশেষে সাফল্য, এই প্রথম করোনায় নতুন করে কারও মৃত্যু হল না চিনে

এখনও পর্যন্ত কেরলে কোভিড ১৯-এ (Covid 19) মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩২৫। তবে বর্তমানে চিকিৎসাধীন ২৫৬। মৃত্যুর হারও বাকি দেশের তুলনায় অনেকটাই কম। মাত্র দু’ জনের মৃত্যু হয়েছে কেরলে। এমনকি করোনামুক্ত হয়ে কিছু দিন আগেই বাড়ি ফিরেছেন ৯৩ বছরের বৃদ্ধ ও তাঁর ৮৮ বছরের স্ত্রী।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন