padmavati

ওয়েবডেস্ক: ধীরে হলেও কি শান্ত হওয়ার পথে ‘পদ্মাবতী’র মুক্তি সংক্রান্ত বিবাদ?

স্পষ্ট করে কিছু বলা না গেলেও ছবিটা আগের মতো নিরাশাব্যঞ্জক নয়। বলিউডের চলচ্চিত্র জগতের ডাকসাইটে ব্যক্তিত্বরা একজোটে বিরোধীদের প্রতিবাদে মুখর হয়েছেন। দীপিকা পাড়ুকোনের পক্ষে মুখ খুলেছেন কর্নাটক সরকার। এমনকী হরিয়ানার যে বিজেপি নেতা ছবির নায়িকা দীপিকা পাড়ুকোন আর পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনসলির মাথার দাম ঘোষণা করেছিলেন ১০ কোটি টাকা, তাঁর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার উদ্যোগ চলছে।

মঙ্গলবার কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া সাফ জানিয়েছেন- পদ্মাবতী মুক্তি প্রসঙ্গে এই জলঘোলার কোনও মানেই হয় না। “বিজেপি এবং তার সমর্থক কিছু দক্ষিণপন্থী দলের এই যে অসহিষ্ণুতার সংস্কৃতি, আমি তার তীব্র নিন্দা করছি! এবং জানিয়ে রাখি, গোটা ঘটনায় কর্নাটক দীপিকার পাশেই আছে। ও আমাদের রাজ্যের মেয়ে, শেষ পর্যন্ত আমরা ওকেই সমর্থন করব!” পাশাপাশি, হরিয়ানার বিজেপি নেতা সুরজ পাল আমুকে নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন সিদ্দারামাইয়া, যিনি দীপিকার মাথার দাম ঘোষণা করেছেন ১০ কোটি টাকা। “আমি ইতিমধ্যেই জবাবদিহি দাবি করেছি হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে- যাঁরা এধরনের হুমকি দিচ্ছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে তিনি কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না কেন? দীপিকা তো নেহাতই এক অভিনেত্রী। এই ঘটনায় ওকে জড়ানো তো অর্থহীন”, জানিয়েছেন তিনি। অবশ্য শুধু কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রীই আমুর বিরোধিতা করছেন না। জানা গিয়েছে, গুরুগ্রামের এক ব্যক্তিও থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন আমুর বিরুদ্ধে।

কর্নাটক সরকারের মতো এতটা খোলাখুলি না হলেও ‘পদ্মাবতী’ বিতর্কে প্রাথমিক ভাবে এক মধ্যবর্তী অবস্থান অবলম্বন করেছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। তাঁর বয়ানে তিনি ‘পদ্মাবতী’-নির্মাতা এবং বিরোধী- দুই পক্ষকেই ভর্ৎসনা করেছেন। “আমি ঘটনায় বিরোধীদের দোষ যেমন দেখতে পাচ্ছি, তেমনই দোষ খুঁজে পাচ্ছি বনসলিরও। জাতীয় ভাবাবেগ জড়িয়ে আছে, এমন ঘটনা নিয়ে ছবি বানাতে যাওয়াই বা কেন?” পাল্টা প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

অন্য দিকে ছবিটি নিয়ে এই বিতর্ক যে অর্থহীন, তা এক অন্য দিক থেকে তুলে ধরেছেন উত্তরপ্রদেশের সমাজবাদী দলের নেতা আজম খান। “পদ্মাবতী নিয়ে এই যে এত বিতর্ক, তার পুরোটাই কিন্তু হিন্দুদের তৈরি করা। দেশের মুসলমানদের দেখুন, তাঁরা কেউ পদ্মাবতীর বিরোধিতা করছেন না। কারণ তাঁরা জানেন, একটা ছবি, তাতে যাই দেখানো হোক না কেন, তা ইতিহাস বদলে দেওয়ার ক্ষমতা ধরে না”, বলছেন তিনি। বক্তব্যের সপক্ষে তিনি তুলে ধরেছেন ‘মুঘল-ই-আজম’ ছবিটির কথা। “ওই ছবিতে আকবরের ছেলে সেলিমের প্রেমিকা হিসেবে দেখানো হয়েছিল নর্তকী আনারকলিকে। ইতিহাস এমন কোনো সাক্ষ্য যদিও দেয় না। কিন্তু ভারতের মুসলমান সমাজ তো কোনো আপত্তি তোলেনি! এখনও তুলছে না”, জানাচ্ছেন খান।

পাশাপাশি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনে গোয়ায় এসে শাহরুখ খানও মুখ খুলেছেন ‘পদ্মাবতী’ বিতর্কে। কোনো বিরোধিতাতেই যে ভবিষ্যতে এমন ছবি বানাতে দ্বিধা করবে না বলিউড, তা সাফ জানিয়েছেন তিনি। এও বলেছেন, “ঘটনায় বলিউড বনসলির পাশেই আছে। অশান্তি যত বড় আকারই ধারণ করুক না কেন, একটা সংসার একজোটে থাকলে ঠিক তার মোকাবিলা করতে পারে। এই বিপদের দিনেও আমরা সঙ্ঘবদ্ধ আছি।“

শাহরুখ মৃদু ভাবে তাঁর বক্তব্য জানালেও ডাকসাইটে দক্ষিণী অভিনেতা কমল হাসন বেশ কড়া ভাবেই সমালোচনা করেছেন বিরোধীদের। টুইট করে তিনি জানিয়েছেন, “কোনো বিতর্কেই চরমপন্থাকে সমর্থন করা যায় না। চিন্তাশীল ভারত জেগে উঠুক! এবার ভাবার সময় এসেছে। আমরা অনেক কথাই বলেছি, এবার ভারত মায়ের বক্তব্যটাও শুনি!” একই সঙ্গে দীপিকার মাথার দাম ধার্য করা নিয়ে রসিকতা করেছেন তিনি। বলেছেন, “আমিও দীপিকার মাথা চাই, কিন্তু সুরক্ষিত অবস্থায়!”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here