Lal Sarkar bollywood moovie and Tripura election

ওয়েবডেস্ক:  ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই রিলিজ করতে চলেছে সুশীল শরমনের নতুন ছবি ‘লাল সরকার’। তবে হিন্দি ছবিটিকে ঘিরে বলিউডে যতটা না আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে, তার থেকে কয়েকগুণ চাঞ্চল্য চড়িয়েছে ত্রিপুরায়। কেন?

আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি ত্রিপুরায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে বিধানসভা নির্বাচন। শাসক দল সিপিএমের কাছে এখন সব থেকে বড়ো প্রশ্ন, তারা বিগত ২৫ বছরের শাসন ক্ষমতা ধরে রাখতে পারবে কি না? এহেন পরিস্থিতিতে তাদের আশঙ্কার আগুনে ঘৃতাহুতি করতে পারে এই ‘লাল সরকার’ ছবিটি। কারণ এখনও পর্যন্ত এই ছবির কাহিনি সম্পর্কে যতটুকু খবরাখবর চাউর হয়েছে, তাতে শোনা গিয়েছে, ত্রিপুরায় বাম সরকারের ‘অপশাসন’  না কি অনেকটা অংশ দখল করেছে ছবিটিতে। যেখানে দেখানো হতে পারে বিগত আড়াই বছরে ত্রিপুরার মানুষ বাম সরকারের কাছ থেকে কী চেয়েছিলেন আর পরিবর্তে কী পেয়েছেন, সে সবেরই হিসাব-নিকাশ।ছবির পরিচালক অভিজিত অশোক পালও জানিয়েছেন, রাজ্যের বর্তমান কর্মসংস্থান, দুর্নীতি, নারী নিগ্রহের মতো গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক সমস্যাগুলিকে তুলে ধরা হয়েছে ওই এক ঘণ্টা ৫০ মিনিটের বাণিজ্যিক ছবিতে।

তবে এর সঙ্গে যে কোনো রাজনৈতিক যোগসূত্র নেই, সে কথা জানিয়েছেন তিনি।

কিন্তু সামনেই বিধানসভা ভোট, স্বাভাবিক ভাবেই ছবিটির ‌রিলিজ তারিখ ঘোষণা হতেই হইচই পড়ে গিয়েছে রাজ্য জুড়ে। যদিও ছবির নির্মাতা বলছেন, নির্বাচন কমিশন বিধানসভা ভোটের নির্ঘণ্ট প্রকাশ করার আগেই তাঁর ছবির মুক্তির দিনক্ষ‌ণ স্থির হয়ে গিয়েছিল। তবে সিপিএমের ত্রিপুরা রাজ্য সম্পাদক বিজন ধর দাবি করেছেন, ‘ছবির নির্মাতা যাই বলুন, এর নেপথ্যে রয়েছে বিজেপি। তা না হলে বিধানসভা ধরে কেন ছবি রিলিজের জন্য নির্দিষ্ট প্রেক্ষাগৃহগুলিকে বেছে নেওয়া হল? নির্বাচনের আগেই বা কেন ওই ছবি রিলিজ করা হচ্ছে?’

সিপিএমের আরও দাবি, ওই ছবিতে গান গেয়েছেন বিজেপির সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। তিনি ওই গান গাইবার জন্য কোনো পারিশ্রমিকও নেননি।

এই অভিযোগেরও সত্যতা স্বীকার করে সুশীল জানিয়েছেন, ‘বাবুল আমার ভাইয়ের মতো। ফলে দাদার ছবিতে গান গাইবার জন্য ভাই যদি পারিশ্রমিক না নেন, তাতে কার কী এসে-যায়?’

এসে-যায়, বলছে সিপিএম। বিধানসভা ভোটে সিপিএমের বিরুদ্ধে প্রচারের জন্য বিজেপি ছক কষেই এমন সময়ে ছবিটি রিলিজ করল।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন