Lalu prasad yadav

রাঁচি:  পশুখাদ্য কেলেঙ্কারিতে অভিযু্ক্ত বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবকে দোষী সাব্যস্ত করল সিবিআইযের বিশেষ আদালত। ১৯৯১-৯৪, টানা চার বছর ধরে ঘটে চলা দেওঘরের পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলার রায় ঘোষণার পর পুলিশ তাঁকে নিজেদের হেফাজতে নিল।

এই পশুখাদ্য কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত হয়েই লালুপ্রসাদকে অতীতে যেতে হয় জেলে। ছাড়তে হয় মুখ্যমন্ত্রী পদ। তারপর একে একে যায় লোকসভার সদস্য পদ এবং ভোটে দাঁড়ানোর অধিকার। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল, ওই কেলেঙ্কারিতে ৮৯ লক্ষ টাকার রাজস্ব ক্ষতি হয়েছে।

গুজরাত বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকেই সিবিআইয়ের হাতে থাকা একের পর এক বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ মামলা রায় ঘোষিত হয়ে চলেছে। প্রথমে ২জি স্পেকট্রাম কাণ্ডে অভিযুক্ত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এ রাজা, কানিমোঝি সহ ১৭ জন বেকসুর মুক্তি পেয়েছেন। গত কাল মহারাষ্ট্রের আদর্শ আবাসন কেলেঙ্কারি মামলায় অভিযুক্ত সে রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অশোক চহ্বনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা খারিজ করে দিয়েছে বম্বে হাইকোর্ট। কিন্তু আরজেডি নেতা লালুর ক্ষেত্রে তেমন কোনো ‘চমৎকার’ ঘটেনি। উপযুক্ত সাক্ষ্যপ্রমাণকে সামনে রেখেই আদালত তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করে। তাঁর সাজা ঘোষণা হবে আগামী ৩ জানুয়ারী। তবে  একই সঙ্গে আর এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগন্নাথ মিশ্রকে রেহাই দেওয়া হল।
গত কালই ছেলে তেজস্বী যাদবের সঙ্গে রাঁচি পৌঁছেছেন লালু। আজ বিচারপতি শিবপাল সিংহের এজলাসে উঠবে পশুখাদ্য মামলা। লালু ১২০ বি, ৪০৯, ৪১৮, ৪২০, ৪৬৭, ৪৬৮, ৪৭১, ৪৭৭ (এ), ২০১ ও ৫১১ এবং দুর্নীতি দমন আইনের ১৩ (১) ডি ও ১৩ (২) ধারায় দায়ের করা মামলায় অভিযুক্ত ছিলেন ।
তবে এটি ছাড়াও আরও আরও তিনটি পশুখাদ্য মামলায় জড়িয়ে রয়েছে লালুর নাম।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here